মেইন ম্যেনু

মাথা ব্যথা থেকে মুক্তির অন্যতম উপায় যৌনমিলন

মাথা ব্যথা একটি সাধারণ সমস্যা। বিষণ্নতা, অবসাদ, ক্লান্তি, অতিরিক্ত পরিশ্রম, শারীরিক ও মানসিক চাপের কারণে মাথা ব্যথা হতে পারে। মাথা ব্যথা উপশমে আমরা প্রায়ই ব্যথানাশক ওষুধ খেয়ে থাকি। এসব ওষুধের প্বার্শপ্রতিক্রিয়া আমাদের নানাবিধ ক্ষতি করতে পারে।

সেক্স: স্নায়ু বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, মাইগ্রেন সমস্যা থেকে মুক্তির অন্যতম উপায় হচ্ছে সেক্স। গবেষকরা বলছেন, মাইগ্রেন সমস্যায় আক্রান্তরা শারীরিক সম্পর্কে মিলিত হলে এই সমস্যা থেকে মুক্তি মিলবে। শারীরিক সম্পর্কে মিলিত হলে ইনড্রোফিনস নামক হরমোন নির্গত করে, যাকে প্রাকৃতিক ব্যথানাশক বলা হয়ে থাকে। এই হরমোন আংশিক কিংবা পুরোপুরি মাথা ব্যথা সাড়াতে সক্ষম।

দামি ব্যথানাশক ওষুধ খাবেন না: প্লাস কিংবা এক্সট্রা লেখা জাতীয় ব্যথানাশক ওষুধ এড়িয়ে চলুন। সাধারণ মানুষের ধারণা, এই জাতীয় ওষুধ দ্রুত মাথা ব্যথা কমাবে। এতে ক্যাফেইন বা কোডেইন থাকে, যা আপনার জন্য উপযোগী নাও হতে পারে। প্যারাসিটামল, অ্যাসপিরিন এবং নন স্টেরোইডাল প্রদাহ প্রতিরোধী ওষুধ ১৫ দিন বা এক মাসের বেশি খেলে চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া উচিত।

সোজা হয়ে বসুন: মাথা ব্যথার সমস্যা থাকলে চেয়ারে সামনের দিকে ঝুঁকে বসে কাজ করা ক্ষতিকর। আপনি চেয়ারে ইংরেজি সি বর্ণের মতো মাথা সামনের দিকে দিয়ে ঝুঁকে বসেন, তখন ঘাড় ও পিঠের নার্ভে টান পড়ে। যা মাথা ব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। তাই চেয়ারে বসার সময় দুই পা ফ্লোরের সমতলে রাখুন। নিতম্ব এবং হাঁটু সোজা রেখে সামনের দিকে তাকান।

বাদাম এবং শস্য বীজ খান: বাদাম এবং বীজে খনিজ ম্যাগনেসিয়াম রয়েছে। যা মাংস পেশীকে শিথিল করে। গবেষকরা বলেন, ৫০ শতাংশ মাইগ্রেন সমস্যায় আক্রান্তরা ম্যাগনেসিয়ামের অভাবে ভুগেন। তাছাড়া, তাজা সবুজ শাক সবজি, টমাটো সস, শস্য দানা, মটরশুঁটি, ডাল, আলু, জব ম্যাগনেসিয়ামের ভালো উৎস।

পারফিউম বা সুগন্ধি: পারফিউম, আফটার সেভ, সুগন্ধি সাবান, এয়ার ফ্রেশনার, ঘর পরিষ্কার করার রাসায়নিক পদার্থ আমাদের নাকের স্নায়ু কোষগুলোকে সক্রিয় করে এবং তা মস্তিষ্কে বার্তা পৌঁছায়। কিছু মানুষের ক্ষেত্রে স্নায়ু কোষের সংকেত মাথা ব্যথা তৈরি করতে পারে। জানালা খোলা রাখুন এবং রাসায়নিক মুক্ত ফ্রেশনার ব্যবহার করুন।

২০/২০ নিয়ম মেনে চলুন: দীর্ঘক্ষণ কম্পিউটার পর্দায় তাকিয়ে থাকলে মাথা ব্যথা হতে পারে। লালচে এবং ক্লান্ত চোখ দৃষ্টিশক্তি ঝাপসা করে দিতে পারে। চোখ ভালো রাখতে, প্রতি ২০ মিনিট পর পর ২০ ফুট দূরে ২০ সেকেন্ডের জন্য অন্য কিছুর দিকে তাকিয়ে থাকুন।

চুল নিচের দিকে রাখুন: গবেষণায় বলা হয়, ৯৩ জনের মধ্যে ৫০ জন নারীর মাথা ব্যথার কারণ হচ্ছে- চুল পনিটেইল করা বা পেছন দিকে নিয়ে রাবার দিয়ে বাঁধা, বেণী করা, খোঁপা করা, আঁটসাঁট ক্যাপ বা টুপি ব্যবহার, অ্যালিস ব্যান্ড ব্যবহার করা। চুল পেছনে দিকে নিয়ে টান টান করে বাঁধলে মাথার খুলির টিস্যু ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাই চুল শক্ত করে না বেঁধে পেছনে দিকে বা মাথার দুই পাশে আলতো করে রাখতে পারেন।

প্রচুর পানি পান করুন: বড় গ্লাস দিয়ে এক গ্লাস পানি পান করুন। ঠিক দশ মিনিট পর মাথার দুইপাশে এবং ঘাড় পাঁচ মিনিটের জন্য ম্যাসাজ করুন। এই পদ্ধতি অবলম্বন করলে আপনার দুশ্চিন্তা এবং মাথা ব্যথা কমে যাবে।