মেইন ম্যেনু

মাদারীপুরে শিুশু শ্রম বেড়েই চলছে

মাদারীপুর প্রতিনিধি: মাদারীপুরে শিশু শ্রম দিনে দিনে বেড়েই চলছে। যেখানে নরম হাতে বই নিয়ে স্কুলে যাবে, আর সেখানে নরম হাতে ধরতে হয় শক্ত মজবুদ কোন ভারি যন্ত্রপাতির। আসলেই আমাদের দেশের দারিদ্রতা দায় অনেক খানি। দরিদ্র বাবা, মা সন্তানকে পারে না ঠিকমত তিনবেলা খাবার মুখে তুলে দিতে পারে না আদরের শিশুটিকে, সেখানেই আবার পড়ালেখা করানো। আমাদের

দেশ এখন খাদ্য সয়ংম্পূর্ন হয়ে, বিদেশে খাদ্য রপ্তানি করে। এখানে কথা হচ্ছে, বাবা, মা তাহলে তার আদরের শিুশুটি ছোট বেলা থেকেই আয়-রোজগার করানের জন্য কাজ পাঠছে। মুলত তা না এখানে দারিদ্রতায় বেশী প্রাধান্য পায়।

মাদারীপুরে বিভিন্ন জাগায় মটর গ্রেজে, সার্ভিসং সেন্টারে, মোটর সাইকেই ওর্য়াকসপে, চায়ের দোখানে, হোটেল গুলিতে, বাসের হেলপার হিসেবে এসব কাজে শিশুদের টাকার বিনিময় শিশু শ্রম করতে বেশী দেখা যায়। এদের বয়স ৫ থেকে ১৫ বছরের মধ্যে।

মাদারীপুরের সদরের তেমনি এদেরই মধ্যে একজন শিশু যার নাম মো: ইয়াসিন, বাড়ি ঝাউদি, থাকে ভারা বাড়ি সৈয়দার বালিতে, বাবার নাম আব্দুল হাকিম পেশা দিন মুজুর, তার পক্ষে সম্ভাব না ছোট ৬ বছরের শিুশুটিকে তিন বেলা খাবার মুখে দিতে, না কোন খরচ বহন করতে, তাই তার ছেলেটি দিতে হলে চায়ের দোকানের কাস্টমারদের কাছে চা এর কাপ পৌয়ছে দিতে, এ ধরনের কাজের জন্য।

এখানেও উঠে আসছে দারিদ্রতায়। মাদরীপুরের এমন অনেক শিশু আছে তাদের সহজেই দেখা মিলে ঐ সব কাজের দোকান গুলিতে।

তবে এখানেই থেমে নেই এই শিশু শ্রম। মাদারীপুরে দিনেদিনে বেড়েই চলছে এই শিশু শ্রম। শিশু শ্রম এখনি না থামালে দিনদিন এ শিশু শ্রম আরোও ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পাবে যা নতুন প্রজন্মের জন্য হুমকি স্বরুপ।