মেইন ম্যেনু

মাধ্যমিকের পাঠ্যক্রম ও পাঠ্যপুস্তক পর্যালোচনায় কমিটি

মাধ্যমিক স্তরের পাঠ্যবই পরিমার্জন করে আরও পাঠযোগ্য, আকর্ষণীয় ও সহজ করতে বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নিয়ে দুটি কমিটি গঠন করেছে সরকার।

দুটি কমিটিতে ১০ জন করে সদস্য রয়েছেন। দুটি কমিটিতে সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করবেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব চৌধুরী মুফাদ আহমদ।

রোববার শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, গত ৪ জানুয়ারি মন্ত্রণালয়ের উপসচিব নুসরাত জাবীন বানু স্বাক্ষরিত দুটি আদেশে কমিটি দুটি গঠনসংক্রান্ত নির্দেশনা দেওয়া হয়। নির্দেশনাটি গত সপ্তাহে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডে (এনসিটিবি) পাঠানো হয়।

৬০ কার্যদিবসের মধ্যে এটি সুপারিশ আকারে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে জমা দিতে হবে বলে আদেশে উল্লেখ করা হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, কমিটি প্রয়োজনে সদস্য হিসেবে আরও কাউকে অন্তর্ভুক্ত করতে পারবে ও বিশেষজ্ঞদের আমন্ত্রণ জানাতে পারবে।

দুটি কমিটির মধ্যে একটি কমিটি ২০১২ সালের পাঠ্যক্রম পর্যালোচনা করে পাঠ্যবই আরও পাঠযোগ্য করতে সুপারিশ দেবে।

আরেক কমিটিকে নবম-দশম শ্রেণির কয়েকটি বই পরিমার্জন করে সুখপাঠ্য, আকর্ষণীয় ও সহজ করার দায়িত্ব পালন করবে।

২০১২ সালের পাঠ্যক্রম পর্যালোচনা কমিটিতে রয়েছেন- শিক্ষাবিদ অধ্যাপক আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মনজুর আহমদ, অধ্যক্ষ কাজী ফারুক আহমেদ, মতিঝিল সরকারি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক তানজীল আশ্রাফ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক হোসনে আরা বেগম, ঢাকা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান, জাতীয় পাঠ্যপুস্তক ও পাঠ্যক্রম বোর্ডের (এনসিটিবি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক নারায়ণ চন্দ্র সাহা। এনসিটিবির সদস্য (পাঠ্যক্রম) অধ্যাপক মো. মশিউজ্জামান এ কমিটিতে সদস্য সচিবের দায়িত্ব পালন করবেন।

অপরদিকে নবম-দশম শ্রেণির পাঠ্যবই পরিমার্জনের কমিটিতে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আখতারুজ্জামান, অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক এমএম আকাশ, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) অধ্যাপক মোহাম্মদ কায়কোবাদ, ঢাকা বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক তাসলিমা বেগম, উদ্দীপন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক এসএম ওয়াহিদুজ্জামান এবং এনসিটিবির চেয়ারম্যান অধ্যাপক নারায়ণ চন্দ্র সাহা। এ কমিটিতে সদস্য সচিবের দায়িত্ব পালন করবেন এনসিটিবির সদস্য (পাঠ্যপুস্তক) অধ্যাপক ইনামুল হক সিদ্দিকী (রতন সিদ্দিকী)।

নবম ও দশম শ্রেণির পাঠ্যবই পরিমার্জনের জন্য কমিটি আগে পাঠ্যপুস্তক নির্বাচন করবে। এজন্য কমিটি একটি সময়াবদ্ধ কর্মপরিকল্পনা তৈরি করবে যাতে ২০১৮ সালের ১ জানুয়ারির আগেই সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পরিমার্জিত পাঠ্যপুস্তুক পৌঁছানো যায়। পরিমার্জিত বই জাতীয় পাঠ্যক্রম সমন্বয় কমিটি (এনসিসিসি) চূড়ান্ত অনুমোদন দেবে।