মেইন ম্যেনু

মানবপাচারকারীদের হুমকিতে পালিয়ে বেড়াচ্ছে এক অসহায় পরিবার

অল্প খরচে বেশী আয়ের আশায় স্বপ্নের দেশ মালেশিয়ায় এই স্লোগান দিয়ে হাজার হাজার আদম সন্তানকে সাগর পথে মালেশিয়া পাচার করে দিয়েছে এদেশের এক শ্রেণীর রক্তশুষা মানব নামের কলঙ্ক কিছু জানোয়ার। তাদের স্বপ্নের বুলি শোনে সাগর পথে মালেশিয়ায় যাওয়ার সময় মায়ের বুক থেকে হারিয়ে গেছে অনেক সন্তান, স্ত্রী হারিয়েছে প্রিয় স্বামীকে, সন্তানেরা হারিযেছে তাদের বাবাকে।

তেমনিভাবে মালেশিয়ায় পাচার হওয়া ৩ পুত্রকে হারিয়ে পাগল প্রায় অসহায় এক পিতা। প্রশাসনের নিকট ছেলেদের ফেরত ছেয়ে মামলা করায় শীর্ষ মানব পাচারকারী সেন্ডিকেটের সদস্যদের প্রাণে মারার হুমকি ধমকিতে পালিয়ে বেড়াচ্ছে প্রতারিত দিনমজুর বৃদ্ধ ইমাম হোসেন।

কক্সবাজার জেলা জজ মানব পাচার অপরাধ দমন ট্রাইব্যুনাল দায়ের কৃত অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, উখিয়া উপজেলার জালিয়া পালং ইউনিয়ন দীঘির বিল লম্বাির পাড়া গ্রামের ইমাম হোসেনের ৩ পুত্র আবুল কাসেম (৪২) আবুল কালাম (৩৫), শাহ আলম (৩২) কে গত ১৫/০১/২০১৫ তারিখে মিথ্যা স্বপ্ন ও চাকুরির প্রলোভন দেখিয়ে শতশত মানব সন্তানের সাথে তাদেরকেও সু-কৌশলে পাচার করে দেয় উখিয়ার মানব পাচারের অন্যতম গড ফাদার একই গ্রামের ইসলাম মিয়ার পুত্র বেলাল আহম্মদ প্রকাশ লাল বেলাল, জালাল আহম্মদ ও হারুনুর রশিদের নেতৃত্ব্যধীন শক্তিশালী মানব পাচারকারী সেন্ডিকেট, উক্ত মানবপাচারকারীদের বিরোদ্ধে রয়েছে একাদিক মানবপাচারের মামলা যারা দীর্ঘদিন যাবত বিভিন্ন পয়েন্ট দিয়ে কৌশলে মালয়েশিয়াসহ বিভিন্ন দেশে মানবপাচার করে আসছে।

এদিকে পিতা ইমাম হোসেন জানতে পারে তার ৩পুত্রকে মালয়েশিয়ায় পাচার করে দেওয়া হয়েছে তখনই সে পাগলের ন্যায় ছুটে যায় উক্ত মানব পাচারকারী সেন্ডিকেটের কাছে, তখন তারা তাকে আশ্বস্থ করে বলে যে, তোমার ছেলেরা ভাল আছে নিরাপদে আছে। ছেলেদের কে যদি চাও তাহলে আমাদের কে জনপ্রতি ১লক্ষ ৬৫ হাজার টাকা করে দিতে হবে।

অসহায় বৃদ্ধ ইমাম হোসেন তখন তাদের বলেন আমি এত টাকা কোথায় পাব? আমার কাছে এত টাকা নেই, এ সময় উক্ত মানবপাচারকারী সেন্ডিকেটের সদস্যরা তার কাছ থেকে ৩০০ টাকার প্রতিটি ১০০ টাকার ৩ ফর্দ নন জুডিসিয়াল স্ট্যাম্পে টিপসহি সহ জোরপূর্বক আদায় করে নেয়।

ঐ সময় বলা হয় যখন ১,৬৫,০০০দ্ধ৩= ৪,৯৫,০০০ হাজার টাকা যদি আদায় করা হবে যেদিন এনে দিতে পারবে সেদিন তোমার স্টাম্প তোমাকে ফিরে দেওয়া হবে। পরে বৃদ্ধ ইমাম হোসেন ও পাচার হওয়া ছেলেদের স্ত্রীরা ধার দেনা, স্বর্ণ, ঘরের সহায় সম্বল বিক্রি করে ৪ লক্ষ ৮৫ হাজার টাকা উক্ত মানব পাচাকারীদের হাতে তুলে দেওয়ার আট মাস অতিবাহিত হয়ে গেলেও পাচার হওয়া পুত্রদের ব্যপারে কোন সংবাদ না পেয়ে বৃদ্ধ ইমাম হোসন মানব পাচারকারী বেলাল আহম্মদ ও সিন্ডিকেটের সদস্যদের কাছে গিয়ে তার ছেলেদের সন্ধান ও স্ট্যাম্পটি ফেরত চাইতে গেলে তারা বলে তোমার ছেলেরা মালেশিয়ায় ভাল আছে তোমাকে আরও টাকা দিতে হবে, না দিলে তোমার ছেলেদেরকে মেরে ফেলা হবে এবং তোমার স্ট্যাম্প ফেরত দেওয়া হবে না বলে সাফ জানিয়ে দেওয়া হয় বৃদ্ধ ইমাম হোসেন জানান ।

এদিকে ছেলেদের ফেরত ও জোর পূর্বক আদায় করা স্ট্যাম্পটি ফেরত পেতে বৃদ্ধ ইমাম হোসেন গত ১৪ই নভেম্বর জেলা প্রশসাক, পুলিশ সুপার মহোদয় কক্সবাজার, বাংলাদেশ মানব অধিকার কমিশন, র‌্যাব-৭ কক্সবাজার, অফিসার ইনচার্জ উখিয়া থানা বরাবর অভিযোগ দায়ের করিলে অসহায় দনিমজুর ইমাম হোসেনকে মিথ্যা মামলা সহ প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে আসছে, যার ফলে আসহায় বৃদ্ধ ইমাম হোসেন ও তার পরিবার বর্তমানে নিরাপত্তাহীনতায় দিনাতিপাত করছে।

তারা আশংকা প্রকাশ করছেন তার কাছ থেকে জোর পুর্বক আদায় করা স্ট্যাম্প দিয়ে জমিজমার প্রতরণা মূলক ভূয়া দলিল সৃজন সহ বিভিন্ন কৌশল অবলম্বল করে ষড়যন্ত্র মূলক কর্মকান্ডে জড়াইয়ে দিতে পারেন। এ ব্যপারে বৃদ্ধ ইমাম হোসেন জেলা প্রশাসক মহোদয়, পুলিশ সুপার মহোদয়, প্রশাসনসহ জনপ্রতিনিধিদের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।