মেইন ম্যেনু

মানবপাচারের অভিযোগে থাই সেনা কর্মকর্তার আত্মসমর্পণ

মানবপাচারে জড়িত থাকার অভিযোগ ওঠার পর থাইল্যান্ডের রাজকীয় সেনাবাহিনীর বরখাস্ত হওয়া জ্যেষ্ঠ উপদেষ্টা লেফটেন্যান্ট জেনারেল মানাস কংপায়েন আদালতে আত্মসমর্পণ করেছেন।

ওই সেনা কর্মকর্তার আত্মসমর্পণের খবর বুধবার বিকেলে প্রকাশ করেছে ব্যাংকক পোস্ট।

এর আগে রবিবার মানবপাচারে জড়িত থাকার অভিযোগে ওই সেনা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানার আবেদনে আদালত সম্মতি দেন। না থাবি প্রদেশের আদালত পুলিশের করা ওই আবেদনে সোমবার সম্মতি দেন।

জেনারেল মানাস থাইল্যান্ডের রাজকীয় সেনাবাহিনীর সিনিয়র উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। মানবপাচারের অভিযোগে গ্রেফতারি পরোয়ানার পর তাকে সেনাবাহিনী থেকে বরখাস্ত করা হয়।

গত ১ মে থাইল্যান্ডের গহীন জঙ্গলে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের অভিবাসীদের গণকবর আবিষ্কারের পর মানবপাচারের সঙ্গে জড়িত থাকার ব্যাপারে এই প্রথম দেশটির সামরিক বাহিনীর সিনিয়র কোনো কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হলো।

ওই ঘটনার পর ৮২ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে। এর মধ্যে ৫১ জনকে আটক করা হয়েছে।

২০০৭ সাল থেকে চলতি বছরের এপ্রিল মাসে সামরিক বাহিনীতে রদবদলের আগ পর্যন্ত জেনারেল মানাস দক্ষিণাঞ্চলীয় প্রদেশগুলোতে দায়িত্ব পালন করেছেন। এ সময় তিনি সঙ্খলা প্রদেশের ৪২ নম্বর সামরিক সার্কেলের কমান্ডার ছিলেন। এ ছাড়া চুম্ফন প্রদেশের সামরিক বাহিনীর প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।