মেইন ম্যেনু

মানব উন্নয়ন সূচকে আগের অবস্থানেই বাংলাদেশ

জাতিসংঘের ২০১৫ সালের মানব উন্নয়ন সূচকে বাংলাদেশের কোনো উন্নতি বা অবনতি হয়নি। ১৮৮টি দেশের মধ্যে আগের বছরের মতো এবারও বাংলাদেশ ১৪২তম।

প্রতিবেশী দেশ ভারত আগের বছরের তুলনায় পাঁচ ধাপ এগিয়ে তালিকায় স্থান পেয়েছে ১৩০ নম্বরে। অন্যদিকে পাকিস্তান আরও এক ধাপ নেমে এসে ১৪৭তম হয়েছে।

আজ রবিবার জাতিসংঘ উন্নয়ন তহবিলের এ প্রতিবেদনটি যৌথভাবে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ ও ইউএনডিপি বাংলাদেশ অফিস আনুষ্ঠানিক প্রকাশ করে। রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে ওই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ড. ওয়াহিদ উদ্দিন মাহমুদ। প্রতিবেদনটি উপস্থাপন করেন ইউএনডিপির হিউম্যান ডেভলপমেন্ট অফিসের পরিচালক ড. সেলিম জাহান।

আয়ু, শিক্ষা ও মাথাপিছু আয় এই তিনটি সূচক বা ইন্ডিকেটরের ভিত্তিতে মানব উন্নয়ন সূচক নির্ধারিত হয়ে থাকে। ২০১৪ সালের উপাত্তের ভিত্তিতে প্রস্তুত ২০১৫ সালের মানব উন্নয়ন সূচকে প্রথম তিনটি দেশ হলো— নরওয়ে, অস্ট্রেলিয়া ও সুইজারল্যান্ড। আর সবচেয়ে নিচের তিনটি দেশ হলো নাইজার (১৮৮), সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিক (১৮৭) ও ইরিত্রিয়া (১৮৬)।

মধ্য আয়ের দেশের তালিকায় যে ৩৯টি দেশ রয়েছে, সেখানে বাংলাদেশ স্থান পেয়েছে। তবে এই তালিকার সর্বশেষ তিনটি দেশের একটি হলো বাংলাদেশ। মধ্য আয়ের দেশ হিসেবে তার নিচে রয়েছে শুধু কম্বোডিয়া ও সাও তোমে অ্যান্ড প্রিন্সিপে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত ২৫ বছরে প্রায় ২০০ কোটি মানুষের কর্মসংস্থান করার মাধ্যমে দারিদ্র্য মুক্তির পথে বিশ্ব অনেকটা এগিয়েছে। কিন্তু এখনও মাত্র দৈনিক দুই ডলারের কম আয়ে জীবনযাপন করে, এমন কর্মরত মানুষের সংখ্যা ২০ কোটি।

গত দুই দশকে মানব উন্নয়নের তিনটি সূচকেই বাংলাদেশে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি অর্জিত হয়েছে। ১৯৯০-২০১৪ সাল পর্যন্ত এই ২৪ বছরে বাংলাদেশের মানব উন্নয়ন সূচক বেড়েছে প্রায় ৫০ শতাংশ। প্রতি বছর ১ দশমিক ৫৫ শতাংশ হারে অগ্রগতি হয়েছে বাংলাদেশের।