মেইন ম্যেনু

মানুষের মস্তিষ্কে মেমোরি প্রতিস্থাপন!

মানুষের স্মৃতিশক্তি সুপারচার্জড হওয়ার কাছাকাছি। নিউ সাইনটিস্টের প্রতিবেদন অনুযায়ী আগামী বছর থেকে আমরা শুধু পুরনো স্মৃতি প্রতিস্থাপনই নয় নতুন কার্যদক্ষতাও মস্তিষ্কে ঢোকাতে পারবো। যেমনটি দেখা গিয়েছিল চতুর্থ প্রজন্মের মেট্রিক্স সিনেমায়।

প্রথম পরীক্ষাটি মৃগী রোগীর উপর চালানো হয়েছিল। সিজারের কারণে মাঝে মাঝে হিপ্পোক্যাম্পাস ক্ষতিগ্রস্থ হয়। যার কারণে মস্তিষ্ক দীর্ঘদিনের স্মৃতি হারিয়ে ফেলে।
ইউনিভার্সিটি অব সাউদার্ন ক্যালিফোর্নিয়ার গবেষক থিউডার বার্জার এবং তার সতীর্থরা মিলে হারিয়ে যাওয়া স্মৃতিকে মেরামত করার এক প্রক্রিয়া আবিষ্কার করেছেন। এই প্রক্রিয়ায় মানুষের মস্তিষ্কে ইলেক্ট্রোডস বসানো হয়েছে। মৃগী রোগীর চিকিৎসা হিসেবে মস্তিষ্কের বৈদ্যুতিক কর্মকান্ড ধারণ করা হয়েছিল মেমোরির সাহায্যে।

গবেষকদল এমন একটি অ্যালগরিদম আবিষ্কার করল যা দিয়ে স্বল্প সময়ের স্মৃতি কিভাবে দীর্ঘসময়ের স্মৃতিতে পরিণত হয় তা ধারণা করতে পেরেছে। এটা হিপ্পোক্যাম্পাসের ভেতর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে।

আগামী বছরের শুরুতে বার্জারের গবেষক দল অ্যালগরিদম ব্যবহার করবে যা ইলেক্ট্রোডস কে ধারণ করতে দেবে এবং মস্তিস্কের কার্যাবলী ধারণ করবে। এটি তখনি কার্যকর হবে যখন দীর্ঘক্ষণ মেমোরি মস্তিষ্কে সৃষ্টি হবে।

বার্গার বলেন,‘আশা করি, এটি দীর্ঘক্ষণ স্মৃতি মেরামত করতে সহায়তা দেবে। এ পদ্ধতি ব্যবহার করে গবেষণার অংশ হিসেবে পূর্ববর্তীতে প্রাণিদের উপর পরীক্ষা করা হয়েছিল। পরামর্শ দেয়া হয় প্রসথেটিকস মানুষকে আরও ভালো স্মৃতি শক্তি দিতে পারে মানুষের প্রাকৃতিক স্মৃতির চেয়েও।

যাই আসুক, মস্তিষ্কের উপর চাপ কমানোর সমস্যা সমাধানের পথে বিজ্ঞানীর।