মেইন ম্যেনু

মালাইকা-আরবাজের ডিভোর্স নিয়ে ক্ষুব্ধ সালমানের বাবা

ছেলে আরবাজ খান ও মালাইকা অরোরার মধ্যে ডিভোর্স নিয়ে গণমাধ্যম্যে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন সুপারস্টার অভিনেতা সালমান খানের বাবা স্ক্রিপ্ট রাইটার, অভিনেতা ও প্রযোজক সেলিম খান। অন্যের ব্যক্তিগত বিষয়ে তিনি নাক গলান না বলে মিডিয়ার নানান প্রশ্নের উত্তর এড়িয়ে যান তিনি।

গত কয়েক মাস থেকেই গুঞ্জন শোনা যাচ্ছিল যে আরবাজ খান ও মালাইকার মধ্যে ছাড়াছাড়ি হয়ে যাচ্ছে। আরবাজ চাইলেও মালাইকা নাকি আর পেরে উঠছেন না দীর্ঘ আঠারো বছরের সংসারকে চালিয়ে যেতে। তাদের মনের বনিবনা হচ্ছে না বলেই মালাইকা নিজ থেকেই আরবাজের কাছে ডিভোর্স চাইছেন।

গতকাল সারাদিন বলিউডের এই জুটিকে নিয়ে সরগরম ছিল ভারতের গোটা বিনোদন অঞ্চল। মিডিয়াও মুখিয়ে ছিল খবরটির সত্যতা যাচাই করতে। আর তাই আরবাজ খানের বাবা প্রখ্যাত চিত্রনাট্যকার সেলিম খানের মুুখোমুখি হয়েছিলেন ভারতীয় গণমাধ্যমগুলো। কিন্তু আরবাজ-মালাইকার বিষয়টি তার কাছে জানতে চাইতেই ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন সেলিম খান। এই বিষয়ে কোনো ধরনের মন্তব্য করতে নারাজ তিনি।

মিডিয়ার উদ্দেশে সেলিম খান বলেন, আমি একজন লেখক। দয়া করে আমাকে কারো ব্যক্তিগত বিষয় নিয়ে জিজ্ঞেস করবেন না। কার সম্পর্ক হল, কিংবা কার ভাঙলো এসব নিয়ে আমাকে জিজ্ঞেস করবেন না। কারো ব্যক্তিগত সম্পর্ক নিয়ে আগ বাড়িয়ে কিছু বলতে চাই না। এখানে তাদের সন্তানদের জীবন জড়িয়ে আছে!

অন্যদিকে মালাইকা অরোরার মাও এই ইস্যুতে মিডিয়াকে কিছুই বলতে চাননি। গণমাধ্যমে বলা অরোরার মা জয়েস পলিকার্প বলেন, আরবাজ ও মালাইকা যথেষ্ঠ পরিনত। তারা একসঙ্গে দীর্ঘদিন সংসার করেছে। তাদের যা ভালো, তা নিশ্চয় তারা বেছে নেবে। এখানে আমার বলার কিছুই নেই। মিডিয়াকে এই বিষয়ে আমার কিছুই বলার নেই।

প্রসঙ্গত, মালাইকা ও আরবাজ খানের মধ্যে দাম্পত্য কলহের বিষয়টি গণমাধ্যমে চলে আসে গেল জানুয়ারি থেকে। কিন্তু মিডিয়াকে পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে বলেই বিভিন্ন সময় মন্তব্য করেন আরবাজ। গেল সপ্তাহে সালমানের এক নিমন্ত্রণে একটি অভিজাত রেস্টুরেন্টেও একসঙ্গে দেখা গিয়েছিল আরবাজ ও মালাইকাকে। কিন্তু একসঙ্গে থাকার ভান করে থাকলেও শেষ পর্যন্ত ডিভোর্সের সিদ্ধান্তে নাকি অনড় মালাইকা। আর এমন খবর জানিয়ে বলিউডে তোলপাড় তৈরি করেছে মালাইকার এক ঘনিষ্ঠ বন্ধু। মুম্বাই মিররে প্রকাশিত এক ভাষ্যে মালাইকার বন্ধুটি সম্প্রতি জানায় যে, আরবাজকে ডিভোর্সের সিদ্ধান্তে অনড় আছেন মালাইকা। তিনি অর্থনৈতিকভাবে যথেষ্ঠ স্বচ্ছল এবং স্বাধীন। ১৩ বছর বয়সী ছেলে আরহানের ভরণ পোষণের জন্য তার কোনো সমস্যা হবে না বলেও জানায় ওই বন্ধুটি।