মেইন ম্যেনু

মালিকের খুনীকে ধরিয়ে দেবে পোষা টিয়া? গোয়েন্দা গল্প নয়, বাস্তব ঘটনা…

টিয়াপাখি মানুষকে নকল করে কথা বলতে পারে, এর মধ্যে নতুন কিছু নেই। কিন্তু নিজের মালিকের খুনের কথাও কি সে মনে রাখতে পারে? আমেরিকার মিশিগানের একটি খুনের পরে বাড়ির পোষ্য টিয়ার আচরণে সেই প্রশ্নটাই উঠে এসেছে। বলা হচ্ছে, খুনের একমাত্র সাক্ষীও সে। এর তার সাহায্যেই আসল খুনীকে শাস্তিও দেওয়া সম্ভব।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মিশিগানের এনসলে টাউনশিপে গত মে মাসে খুন হন ৪৫ বছরের মার্টিন ডুরাম। ডুরামের মতো তাঁর স্ত্রী গ্লেনাকেও গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। গ্লেনা অবশ্য প্রাণে বেঁচে যান। ঘটনার মোড় ঘুরে যায় এর পরেই। মৃত মার্টিন ডুরামের পোষা একটি আফ্রিকান গ্রে প্যারট ছিল। তার নাম বাড। ডুরামের মৃত্যুর পরে থেকেই সেই পাখিটি ক্রমাগত একজন নারী এবং পুরুষের উত্তপ্ত বাদানুবাদের নকল আউড়ে যাচ্ছে।

আর শেষে বলছে, ‘না, গুলি চালাবে না।’ এতেই পুলিশের মনে অন্য সংশয় দানা বেঁধেছে। পাখিটি যেহেতু একটি নারী এবং পুলিশের গলা নকল করে ঝগড়া করছে, তাতেই পুলিশ এবং মৃত ডুরামের বাবা-মার সন্দেহ, এই খুনের সঙ্গে ডুরামের স্ত্রী কোনওভাবে যুক্ত থাকতে পারেন। তাই গোটা বিষয়টা আবার নতুন করে তদন্ত করছে পুলিশ।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমে বিষয়টি প্রকাশিত হতেই রীতিমতো জনপ্রিয় হয়ে গিয়েছে বাড নামে ওই টিয়াপাখিটি। এখন সে ডুরামের প্রাক্তন স্ত্রীর বাড়িতে রয়েছে। সেখানে দিনভর একই কথা আওড়ে যাচ্ছে বাড। কিন্তু, বাডের এই বয়ান নিয়ে এখন যে প্রশ্ন উঠছে, সেটি হল, আইনের চোখে একটি টিয়াপাখির বয়ান কি গ্রহণযোগ্য। তার বয়ানের ভিত্তিতে কি কারোকে দোষী প্রমাণিত করা সম্ভব? পুলিশ এ বিষয়ে এখনও কিছু বলেনি। গোটা ঘটনার তদন্ত করছে তারা।