মেইন ম্যেনু

মালির হোটেলে অভিযান শেষে উদ্ধার সকল জিম্মি, নিহত ২৭

মালির রাজধানী বামাকোর পাঁচ তারকা রেডিসন ব্লু হোটেলের জিম্মি থাকা সবাইকে উদ্ধার করা হয়েছে। রেডিসন ব্লু হোটেলে হামলা চালায় সন্ত্রাসীরা। বন্দুকধারীরা ১৭০ জনকে জিম্মি করে রাখে। জিম্মিদের মুক্ত করতে হোটেলটিতে অভিযান চালায় মালি ও ফ্রান্সের বিশেষ বাহিনীর সদস্যরা।

আপডেট (বাংলাদেশ সময়: রাত ১১.১০মি.): রয়টার্স জানিয়েছে, রেডিসন ব্লু হোটেলে বন্দুকধারীদের কাছে জিম্মি থাকা ব্যক্তিদের উদ্ধার করা হয়েছে। মালি ও ফ্রান্সের বিশেষ বাহিনীর সদস্যরা অভিযান চালিয়ে তাদের উদ্ধার করে। হোটেল থেকে ২৭ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

তবে বিবিসি জানিয়েছে, সবাইকে উদ্ধার হয়েছে এবং লাশের সংখ্যা ২০। অন্যদিকে সিএনএন জানিয়েছে, মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে ১০ জন।

আপডেট১: আল জাজিরা জানাচ্ছে, হোটেল থেকে অন্তত ৮০ জন জিম্মি পালাতে সক্ষম হয়েছে অথবা তাদেরকে উদ্ধার করা হয়েছে। । এছাড়া হামলাকারীরা নিজেরাও কিছু জিম্মিকে মুক্তি দিয়েছে।

আপডেট২: মালির স্পেশাল ইউনিটের সদস্যরা হোটেলটিতে প্রবেশ করেছে। ফ্রান্সও তাদের স্পেশাল ইউনিটের সদস্যদের মালিতে পাঠিয়েছে।

আপডেট৩: জিম্মি তিনজন নিহত। জিম্মিদের মধ্যে ভারত, ফ্রান্স, চীন ও তুর্কির নাগরিক আছেন।

আপডেট৪: মালিতে ভারতীয় দূতাবাসের কর্মকর্তাদের বরাতে বিবিসি জানিয়েছে, হোটেলটিতে অবস্থানরত ভারতীয় নাগরিকরা নিরাপদে আছেন।

আপডেট৫: চীনের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে জানানো হয়েছে, হোটেলটিতে আটকে পড়া চার চীনা নাগরিক নিরাপদে বের হতে সক্ষম হয়েছে। এর আড়ে এ টেলিভিশনটি ১০ চীনা নাগরিকের জিম্মি হওয়ার খবর প্রচার করেছিল।

আপডেট৬: টার্কিশ এয়ারলাইনস বলছে, তাদের দুজন কর্মী এখনো হোটেলটিতে আটকা আছেন।

আপডেট৭: মালির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সালিফ ট্রাওরে জানিয়েছেন, জিম্মি সংকটে জড়িত কাউকে কোনরকম ছাড় দেয়া হবে না।

এএফপি জানিয়েছে, হোটেলটির ভেতর থেকে স্বয়ংক্রিয় অস্ত্রের গুলির শব্দ শোনা গেছে।

হামলার পরপরই ১৯০ কক্ষবিশিষ্ট হোটেলটি নিরাপত্তাবাহিনী ঘিরে ফেলে।

হোটেলটি ‘দ্য রেজিডর হোটেল গ্রুপ’ নামক প্রতিষ্ঠানের চেইন। প্রতিষ্ঠানটি বলেছে, তারা হামলার বিষয়ে অবগত আছে। হোটেলটিতে সেসময় ১৪০জন অতিথি ও ৩০ জন কর্মী ছিল।

_86789025_mali_hotel_attack_map624

ঠিক কারা এ হামলা চালিয়েছে, তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

বন্দুকধারীদের সংখ্যা নিয়ে বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়েছে। কিছু সংবাদমাধ্যমে সূত্রের বরাত দিয়ে দাবি করা হচ্ছে, হামলাকারীর সংখ্যা দুই থেকে তিনজন হতে পারে। আবার কয়েকটি সংবাদমাধ্যম নিজস্ব সূত্রের বরাত দিয়ে দাবি করেছে, হামলাকারীর সংখ্যা ১০ থেকে ১২ জন হতে পারে।

জিম্মিদের মধ্যে ছয়জন টার্কিশ এয়ারলাইন্সের কর্মী ছিলেন বলে এর আগে জানিয়েছিলো তুর্কি কর্তৃপক্ষ। এছাড়া সেখানে চীনেরও সাত নাগরিক রয়েছেন বলে জানিয়েছে দেশটির স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলো।

_86785899_a6ad4b8f-6b1f-402f-ba30-0fc361e6e171

এদিকে, বামাকোয় যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস থেকে এক টুইট বার্তায় সেখানকার মার্কিন নাগরিকদের সাবধান থাকতে বলা হয়েছে। সেই সঙ্গে সবাইকে নিরাপদ জায়গায় অবস্থান নিতে ও পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে যোগাযোগ করতেও বলা হয়েছে।

দুবছর আগে ইসলামী জঙ্গী গোষ্ঠীগুলো মালির উত্তরাঞ্চল দখল করে নেয়ার পর থেকেই দেশটিতে চরম অস্থিরতা চলছে। এই জঙ্গীদের দমনে ফ্রান্স দেশটিতে সৈন্য পাঠিয়েছে।