মেইন ম্যেনু

মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রীর অ্যাকাউন্টে ১০০ কোটি ডলার

মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাকের ব্যক্তিগত ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ১০০ কোটি ডলারেরও বেশি অর্থ। এত বিশাল অংকের অর্থ কোথা থেকে এসেছে, কে দিয়েছে তা জানা যায় নি। বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে উদ্ধৃত করে অনলাইন গার্ডিয়ান এ খবর প্রকাশ করেছে।

এতে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াল স্ট্রিট জার্নালে রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছে যে, প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাকের ব্যক্তিগত ব্যাংক অ্যাকাউন্টে আগে যে পরিমাণ অর্থ জমার কথা বলা হয়েছিল তার চেয়ে অনেক বেশি অর্থ জমা হয়েছে। এর পরিমাণ ‘হান্ড্রেডস অব মিলিয়ানস ডলার’।

এ রিপোর্ট প্রকাশের পর মালয়েশিয়াসহ বিশ্ব জুড়ে তোলপাড় চলছে। মঙ্গলবার মালয়েশিয়ার অফিস, রেস্তোরাঁ, শপিংমল সর্বত্র একই আলোচনা। এতো ডলার প্রধানমন্ত্রী কোথায় পেলেন? এর আগে অভিযোগ করা হয়েছিল যে, উন্নয়ন প্রকল্প ১ মালয়েশিয়া ডেভেলপমেন্ট বেরহাদ (১ এমডিবি)-এর প্রায় ৭০ কোটি ডলার জমা হয়েছে নাজিব রাজাকের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে।

ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল নতুন করে যে রিপোর্ট প্রকাশ করেছে তাতে এই অর্থ স্থানান্তরের বিষয় জানেন এমন অজ্ঞাত দু’জন ও বিদেশে তদন্তে নিয়োজিত একজনকে উল্লেখ করে বলা হয়েছে, ২০১১ থেকে ২০১৩ সালের মধ্যে নাজিব রাজাকের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ৬৮ কোটি ১০ লাখ ডলার নয় তার চেয়ে অনেক বেশি অর্থাৎ ১০০ কোটি ডলারের বেশি অর্থ জমা পড়েছে।

এতে বলা হয়, তদন্তে বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে যারা জড়িত তারা মনে করেন রাষ্ট্রীয় তহবিল ১ এমডিবি থেকে এসব অর্থ স্থানান্তর হয়েছে। তবে বাড়তি এই অর্থ কোথা থেকে এসেছে এবং তা দিয়ে কি করা হয়েছে সে বিষয়ে সুনির্দিষ্ট কিছু বলা হয় নি।

মালয়েশিয়ার এটর্নি জেনারেল আপান্দি আলি জানুয়ারিতে নাজিব রাজাককে এ ঘটনা থেকে দৃশ্যত দায়মুক্তি দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, নাজিব রাজাককে সৌদি আরবের রাজ পরিবারের এক সদস্য ৬৮ কোটি ১০ লাখ ডলার উপহার হিসেবে দিয়েছিলেন। তবে এর বেশির ভাগই পরে ফিরিয়ে দেয়া হয়েছে।

কিন্তু ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল সর্বশেষ যে তথ্য দিচ্ছে তা এটর্নি জেনারেলের বক্তব্যের বিরোধী। এ বিষয়ে মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রীর অফিসে থেকে কোন মন্তব্য পাওয়া যায় নি।

মালয়েশিয়ান ৭০ বয়স্ক এক নাগরিক আজমিন দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী দেশের উন্নয়ন না করে নিজের পকেট ভারি করতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন। স্বপ্নদ্রষ্টা মাহাথিরের দেশে প্রধানমন্ত্রীর এ বিশাল দুর্নীতি মেনে নেয়া যায় না।

এদিকে সোমবার আধুনিক মালয়েশিয়ার রূপকার ও দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ নিজের দল ইউএমএনও ত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন।