মেইন ম্যেনু

‘মাশরাফি ভাই একজন বীর’

আগেই বলে নিয়েছিলাম, মাশরাফি বিন মুর্তজা প্রসঙ্গে আপনার মন্তব্য আলাদাভাবে প্রকাশ করতে চাই। লিটন কুমার দাস সানন্দে রাজি হয়েছিলেন।

বাংলাদেশ দলের উদীয়মান ব্যাটিং প্রতিভা প্রতিনিয়তই নিজেকে প্রমাণ করে চলেছেন। চেনাচ্ছেন আলাদাভাবে। দলের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করতে গিয়ে অনেকটা বলে-কয়েই উঠে আসলো মাশরাফির প্রসঙ্গ।

লিটন দাসের চোখে মাশরাফি… কথাটা মুখ থেকে কেড়ে নিয়েই লিটন বলেছিলেন, ‘মাশরাফি ভাই একজন বীর।’ অল্পভাষী মানুষটি মাশরাফির কথা উঠতেই যেন মুখে কথার খই ফোটালেন।

বলছিলেন, ‘অতগুলো অস্ত্রোপচার নিয়েও যে মানুষটি যেভাবে খেলে চলেছেন, দলে জন্য যা করছেন তাতে আমি যা ই বলি না কেন, অনেক কম হয়ে যায়।’ দলের সবার সঙ্গে মাশরাফির এক ‘অন্যরকম’ সম্পর্ক। যারা এখন তার সঙ্গে খেলছেন, তাদের বেশীরভাগই মাশরাফির খেলা দেখে বড় হয়েছেন।

অনেকেই রয়েছেন যারা তাকে আদর্শ মানেন। সেটা শুধু বোলারদের ক্ষেত্রেই নয়! খারাপ সময়েও এই মাশরাফিই থাকেন পাশে। লিটনের ভাষায়, ‘উনি সবসময় আমাদেরকে সমর্থন করেন। সবকিছুতে এগিয়ে আসেন। উনি যা করেন, তার উপরে আসলে আর কিছু হয় না। একজন অধিনায়ক হিসেবে দলের সবার সঙ্গে ভালো সম্পর্ক থাকাটা অলিখিত বাধ্যতামূলক। এই ব্যাপারেও মাশরাফি ভাই ১০০ তে ১০০।’

‘মানুষ’ মাশরাফি সম্পর্কে দলের ভিতরে বাইরে সবাই একমত হলেও, অধিনায়ক মাশরাফি হিসেবে এক একজনের কাছে তিনি এক একরকম। কারো কাছে আক্রমণাত্মক, আরো কাছে কৌশলী, কেউ বা আবার মনে করেন মাঠে সময় বুঝে ব্যবস্থা নেন মাশরাফি। আর লিটন দাসের চোখে? ‘একজন অধিনায়ক আসলে তখনই সফল যখন তিনি জিততে থাকেন। সেক্ষেত্রে মাশরাফি ভাইও এগিয়ে রয়েছেন’ বলছিলেন লিটন।

মাশরাফির ভক্তরা শুধু দর্শকরাই নন, ক্রিকেটাররাও। এর মূল, কারণ হতে পারে দলের কাছ থেকে তাদের সেরাটা কিভাবে বের করে নিয়ে আসতে হয় সেটা খুব ভালো করেই জানা আছে তার।

অন্যদিকে, এই মুহুর্তে বাংলাদেশ ‘এ’ দলের হয়ে ভারত সফরে ব্যস্ত লিটন। ওয়ানডে সিরিজেদল হারলেও, উইকেটকিপিং ও ব্যাটিংয়ে ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সের দিক থেকে এগিয়ে তিনি। দলের পক্ষে সিরিজে নাসির হোসেনের পরেই স্থান তার। মূলত, আগামী মাসে অস্ট্রেলিয়া সিরিজের জন্য প্রস্তুতি হিসেবেই ভারতে পাঠানো হয়েছে তাকে।