মেইন ম্যেনু

কয়লাসহ জাহাজডুবি

মাস্টার-চালকের গাফিলতি ও অদক্ষতাই দুর্ঘটনার কারণ

সুন্দরবন সংলগ্ন বাগেরহাটের মংলা উপজেলার পশুর নদীতে কয়লাসহ ডুবে যাওয়া এমভি জিআর রাজ কার্গো জাহাজ দুর্ঘটনায় তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেছে তদন্ত কমিটি।

বৃহস্পতিবার দুপুর আড়াইটার দিকে পূর্ব বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মো. সাঈদুল ইসলামের কাছে প্রতিবেদন দাখিল করে তদন্ত কমিটি।

তদন্ত প্রতিবেদনে এমভি জি আর রাজ কার্গো জাহাজের মাস্টার ও চালকদের অভিযুক্ত করে বলা হয়েছে, তার গাফিলতি ও অদক্ষতায় এ দুর্ঘটনা ঘটেছে।

শুক্রবার দুপুরে পূর্ব বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মো. সাঈদুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

প্রতিবেদন থেকে আরও জানা যায়, মংলা বন্দরের হারবাড়িয়া এলাকায় গত মঙ্গলবারে একটি জাহাজ থেকে এমভি জিয়া-রাজ কার্গো জাহাজটি কয়লা তুলছিল। কয়লা উত্তলের ডেকে আসা অন্য একটি কার্গো এমভি জিয়া-রাজ কার্গো জাহাজটিকে ধাক্কা দিলে এক পর্যায়ে যে দড়ি দিয়ে কার্গোটি ডেকের সঙ্গে বেঁধে রাখা হয়েছিল তা হঠাৎ ছিঁড়ে যায় ও কার্গোর তলায় ফাটল ধরে। পরবর্তীকে ভাটার সময় কার্গোর মাস্টার ও চালকরা সিমেন্ট দিয়ে ফাটল দিয়ে পানি ঢোকা বন্ধ করে। পরে গন্তব্যস্থলে রওনা দেবার পর পশুর নদীতে ফাটলধরা স্থান থেকে পানি ঢুকে জাহাজটি ডুবে যায়।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয় দুর্ঘটনা কবলিত জাহাজের মালিক দুর্ঘটনার পর কার্গো জাহাজটি উত্তলের ব্যাপারে গাফিলতিও করছে।

এদিকে, দুর্ঘটনা কবলিত এমভি জিয়া-রাজ কার্গো জাহাজটি তিনদিন পর ও উদ্ধার কাজ শুরু হয়নি। তবে ভাই ভাই ভ্যসেল্স নামে একটি বেসরকারি উদ্ধারকারী প্রতিষ্ঠান গতকাল দুপুরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে গেছে।

উল্লেখ্য, কার্গো জাহাজ দুর্ঘটনায় বুধবার (২৮ অক্টোবর) বন বিভাগের পক্ষ থেকে একটি মামলা এবং চাঁদপাই রেঞ্জের সহকারী বন সংরক্ষক বেলায়েত হোসেনকে প্রধান করে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।