মেইন ম্যেনু

মিথ্যা অপবাদ দিয়ে আমার বোনকে স্কুল থেকে বের করে দেয়া হচ্ছে, এখন কী করতে পারি?

আমি জুবায়ের, পড়ছি চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি অ্যান্ড এনিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ে। আমার ছোটবোন পড়ছে বগুড়ার একটি স্কুলে, দশম শ্রেণিতে। সম্প্রতি আমার বোনের বিরুদ্ধে স্কুল কর্তৃপক্ষ কর্তৃক একটা অভিযোগ ওঠে। স্কুলের পিকনিকে রংপুরের ভিন্নজগতে গিয়ে তার এক বন্ধু নাকি তার গায়ে হাত দিয়েছিল। অথচ এ অভিযোগের পক্ষে কোন সাক্ষ্য প্রমাণ তারা হাজির করা দূরে থাক, পদে পদে আমার বাবা মাকে স্কুলে ডেকে কুরুচিপূর্ণ কথাবার্তা বলে তাদেরকে অপমান করা হয়েছে এবং হুমকি দেওয়া হয়েছে- স্কুল থেকে টিসি দিয়ে বের করে দেওয়া হবে। এবং গতকাল সিদ্ধান্ত হয়েছে আমার বোনকে এই ভিত্তিহীন অভিযোগে স্কুল থেকে বের করে দেওয়া হবে। আমার বাবা মা অসুস্থ হয়ে পড়েছে। উল্লেখ্য তারা যেটিকে প্রমাণ হিসেবে দেখাচ্ছে, সেটা হলো একটি ছবি, যা স্কুলের বাহিরে স্কুল ড্রেস পরিহিত অবস্থায় নয়। বন্ধুদের সঙ্গে একটি গ্রুপ ছবি। এ ছবিটাকে তারা বলছে একটা ছেলের সঙ্গে আপনাদের মেয়ের এভাবে ছবি তোলা কতটা শোভনীয়? যদিও ব্যাপারটি স্কুলের সম্পূর্ণ বাইরের ঘটনা। মোটকথা, তারা যে অভিযোগটি এনেছে তার পক্ষে তারা কোনো যুক্তিই দাঁড় করাতে পারছে না। তাদের যুক্তি একটাই- যা রটে তার কিছুতো ঘটে। এখন আমার প্রশ্ন, এভাবে ভিত্তিহীন অনৈতিক একটা অভিযোগ তুলে দশম শ্রেণিতে পড়ুয়া একটি মেয়ের শিক্ষাজীবন ক্ষতিগ্রস্ত করার কোনো অধিকার সত্যিই কি স্কুল কর্তৃপক্ষের আছে? বড় ভাই হিসেবে আমি কী করতে পারি? সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয় কিংবা আইন কি আমাদের একটুও সহযোগিতা দেবে না? একটি সহজ সমাধানের পরামর্শ আশা করছি।

পরামর্শ: ভাইয়া, স্কুল কর্তৃপক্ষ যেটা করছে সেটা আসলেই অনভিপ্রেত ও কষ্টদায়ক। কোনো প্রমাণ ছাড়া এসব আজগুবি অভিযোগ একেবারেই ভিত্তিহীন। হয়তো তারা কোনো প্রভাবশালী চাপে পড়ে বা কোনো খারাপ উদ্দেশ্যে এমনটা করছে। আপনি আপনার বোনকে একটু জিজ্ঞেস করে দেখুন, স্কুলে তার কোনো শত্রু বা অমঙ্গলকামনাকারী কেউ আছে কি না বা কেউ তাকে বাজে প্রস্তাব দিয়ে ব্যর্থ হয়ে প্রতিশোধ নিতে এমনটা করছে কি না। কেউ একজন আপনার বোনের ক্ষতি করবার জন্য এসব অপবাদ রটাচ্ছে, এটা শিওর। আমি মনে করি অবিলম্বে আপনার বোনকে স্কুল পরিবর্তন করান। আপনি স্কুলের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করতে পারেন কিন্তু সেটা অনেক সময়সাপেক্ষ এবং যদি সত্যিই এর পেছনে কোনো খারাপ উদ্দেশ্যের লোক থাকে তাহলে সে আরও ক্ষতিকর কিছু চিন্তা করতে পারে। সবচেয়ে বড় কথা এটার জন্য দরকার যথেষ্ট সাহস ও আত্মবিশ্বাস, লড়াই করবার ক্ষমতা। আর স্থানীয় থানায় পরিচিত কেউ থাকলে ভালো। ইচ্ছা করলে মিডিয়াতেও যোগাযোগ করতে পারেন।প্রিয়উত্তর