মেইন ম্যেনু

‘মুক্তিযুদ্ধে ৩০ লাখেরও বেশি বাঙালিকে হত্যা করা হয়েছে’

স্বাধীনতার চার দশক পরে একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধে কত লোক শহীদ হয়েছিলেন এই প্রশ্নটি নতুন করে ভাবাচ্ছে বাঙালিদের। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত ইঙ্গিত দিচ্ছে ৩০ লাখ নয় বরং তারও বেশি বাঙালিকে হত্যা করা হয়েছে সে সময়। মুক্তিযুদ্ধ গবেষকদের মতও একই রকম।

পাকিস্তানিরা যে অন্তত ৩০ লাখ বাঙালিকে হত্যা করতে চেয়েছিল তার প্রমাণ মিলেছে সে সময় বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে অনুসন্ধান শেষে মার্কিন সাংবাদিক ও গবেষক রবার্ট পেইনের লেখা “ম্যাসাকার” বইটিতে। সোমবার সময় টিভি’র প্রতিবেদনে এসব তথ্য ওঠে আসে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বইটিতে রবার্ট পেইন উল্লেখ করেছেন ‘ত্রিশ লাখ বাঙালিকে হত্যা করো, তখন তারা আমাদের হাত চেটে খাবে।’ সেনাবাহিনীর সঙ্গে বৈঠকে এভাবেই গণহত্যার নির্দেশ দেন ইয়াহিয়া। যার নাম দেয়া হয় ‘অপারেশন সার্চলাইট’। এর প্রতিফলন দেখা যায় পাকিস্তানিদের নির্মম গণহত্যায় আর পুরো দেশে ছড়িয়ে থাকা বদ্ধভূমিতে। যার ৯০ শতাংশই এখন নিশ্চিহ্ন।

স্বাধীনতার চার দশক পর প্রশ্ন জেগেছে,এতদিন কেন ত্রিশ লাখ শহীদের কথা বলা হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধ গবেষকরা বলছেন, ২য় বিশ্বযুদ্ধের পর সবচেয়ে বড় গণহত্যা হয়েছে বাংলাদেশে। তাদের মতে, আর সবগুলো বধ্যভূমি খুঁজে বের করা গেলে ১৯৭১ সালের গণহত্যায় নিহতের সংখ্যা ছাড়িয়ে যাবে ৩০ লাখ।

মুক্তিযোদ্ধা ও গবেষক শাহরিয়ার কবির বলেন, ‘প্রায় সাড়ে ৩ হাজার বধ্যভূমি শনাক্ত করা হয়েছিল। সেখানে প্রায় ৫ থেকে ১০ হাজার মানুষ হত্যা করা হয়েছিল। মতিউর রহমান নিজামীর এলাকায় একটি কুয়া ছিল সেখানে ৩শ’থেকে সাড়ে ৩শ’ মানুষকে হত্যা করা হয়েছিল। চুতনগর বধ্যভূমিতে কয়েক ঘণ্টা নোটিশে সেখানে ১০ হাজারেরও বেশি মানুষকে হত্যা করা হয়েছিল। মহেশখালীতে একটি মন্দিরে কয়েক হাজার মানুষকে হত্যা করা হয়েছিল।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের মনে হয় বিচার প্রক্রিয়া শেষ হলে জানা যাবে একাত্তরের নয় মাসে ৩০ লাখ বা এর বেশি মানুষ হত্যা করা হয়েছিল।’

এরই মধ্যে ১৯৭১ এর মানবতাবিরোধীদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগে দায়ের করা মামলা তদন্তে গণহত্যার বিষয়টিও ওঠে আসে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে। আর প্রত্যেকটি তদন্তে গণহত্যার বিবরণ নতুন করে ভাবাচ্ছে- মুক্তিযুদ্ধে কত বাঙালিকে হত্যা করেছিল পাকিস্তানি হানাদাররা। তারা বলছেন, এসব তদন্ত যেমন হতে হবে দ্রুত, তেমনি নির্ভুল। আর তাতে মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানিদের নৃশংসতা আর গণহত্যা বিশ্বের কাছে তুলে ধরার ক্ষেত্রে আরেক ধাপ এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ।

সূত্র: সময় টিভি