মেইন ম্যেনু

মুক্তিযোদ্ধা-জনতার একতা গড়ার প্রত্যয়ে কলারোয়ায় হানাদার মুক্ত দিবস পালিত

‘মুক্তিযোদ্ধা-জনতা গড়ে তোলো একতা’ -শ্লোগানকে সামনে রেখে ৬ ডিসেম্বর সাতক্ষীরার কলারোয়ায় ‘কলারোয়া মুক্ত দিবস’ নানা কর্মসূচির মধ্যে দিয়ে পালিত হয়েছে।
পাকিস্তান হানাদার বাহিনী মুক্ত এ’ দিবসের আলোচনা সভায় বক্তারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় সুখী-সমৃদ্ধশালী ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার দৃপ্ত প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। রোববার সকালে কলারোয়া উপজেলা অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত গৌরবোজ্জ্বল দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন কলারোয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ফিরোজ আহম্মেদ স্বপন।
উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার উত্তম কুমার রায়, যুদ্ধকালীন কমান্ডার মোসলেম উদ্দীন ও আব্দুল গফফার।
এসময় উপস্থিত ছিলেন ও বক্তব্য রাখেন উপজেলা ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা মাস্টার আব্দুর রউফ, উপজেলা জাসদ’র সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার হোসেন, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাংগঠনিক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ আলি, মুক্তিযোদ্ধা শওকত আলি, কলারোয়া প্রেসক্লাবের সভাপতি শিক্ষক দীপক শেঠ, কলারোয়া পাবলিক ইনস্টিটিউটের সাধারণ সম্পাদক এ্ড.শেখ কামাল রেজা প্রমুখ।
সমগ্র অনুষ্ঠানটি সঞ্চালন করেন উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল হোসেন।
এর আগে বর্ণাঢ্য র‌্যালী কলারোয়া বাজারের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে। ব্যালীতে অংশগ্রহন করেন কলারোয়া বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি ও পৌরসভার স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী আরাফাত হোসেন।

৬ডিসেম্বর কলারোয়া হানাদারমুক্ত দিবসের র‌্যালীর একাংশ।
এর আগে ৩১ বার তোপধ্বনীর মাধ্যমে সূচনা, সকাল ৭টায় বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিত্বে পুষ্পমাল্য অর্পণ, সকাল সাড়ে ৭টায় গণকবরে ও স্মৃতিসৌদ্ধে পুষ্পমাল্য অর্পন, ৮টায় আনুষ্ঠানিক ভাবে জাতীয় পতাকা ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদে পতাকা উত্তোলন, ১০টায় ৭১এর দেশে মুক্তিযোদ্ধা জনতার বিজয় র‌্যালী, ১১টায় হানাদার মুক্ত দিবসে আলোচনা সভা, বাদ জোহর মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের আত্মার মাগফিরাত, জাতির অগ্রগতি ও শান্তি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়।