মেইন ম্যেনু

‘মুখোশ মানুষ’-এর সঙ্গে সালমানের কি সম্পর্ক?

ত্রিশ ডিসেম্বর দেশের প্রেক্ষাগৃহে বছরের সর্বশেষ সিনেমা হিসেবে মুক্তি পেয়েছে আলোচিত ছবি ‘মুখোশ মানুষ’। ছবি মুক্তির আগে ট্রেলারে রগরগে দৃশ্য প্রদর্শনীর জন্য হয়েছিল তুমুল আলোচিত। এবার ছবি মুক্তির পর কিছুটা বিতর্কের মুখে ‘মুখোশ মানুষ’। কারণ, ছবিটি উৎসর্গ করা হয়েছে বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় অভিনেতা প্রয়াত সালমান শাহ!

প্রথমবারের মতো সাইবার ক্রাইম নিয়ে নির্মিত চলচ্চিত্র হিসেবে নাম লিখেয়েছে ‘মুখোশ মানুষ’। ‘স্টপ সাইবার ক্রাইম’ স্লোগান নিয়ে ছবিটি শুক্রবার সারাদেশের ২৩টি সিনেমা হলে মুক্তিও পেয়েছে। বছরের শেষ ছবি হিসেবে অনেকে ছবিটির প্রশংসাও করছেন। বলছেন, কলকাতার মিডল রোড সিনেমার সঙ্গে মিল আছে ‘মুখোশ মানুষ’-এর। কিন্তু অনেকেই ছবিটির উৎসর্গে লেখা নামটি মেনে নিতে পারছেন না!

হ্যাঁ। বাংলাদেশের প্রথম সাইবার ক্রাইম চলচ্চিত্র ‘মুখোশ মানুষ’ উসর্গ করা হয়েছে বাংলার তুমুল জনপ্রিয় তারকা অভিনেতা সালমান শাহ’কে। আর এতেই কিছুটা চটেছেন বেশকিছু সালমান ভক্ত। তারা সিনেমা হলে ছবিটি দেখার পর উৎসর্গে সালমানের নাম দেখে সংক্ষুব্ধ। কেউ বুঝতে পারছেন না, এই ছবিতে কোন সম্পর্কের ভিত্তিতে সালমানকে ছবিটি উৎসর্গ করা হল।

অনেকে ‘মুখোশ মানুষ’-এর উৎসর্গের সমোলোচনা করে বলেন, মূলত সালমানের নাম বিক্রি করে নিজের ব্রান্ডিং করতেই ছবিটি সালমানকে উৎসর্গ করেছেন নির্মাতা। তা না হলে এমন গল্পের ছবির সাথে সালমান নামটি কেনো জুড়ে দেয়া হল!

শতদ্রু সজীব জামান নামের একজন ‘বাংলা চলচ্চিত্র’ গ্রুপে লিখেছেন, ‘মুখোশ মানুষ’ ছবিটি সালমানকে উৎসর্গ করার কারন কি? গল্প কি কোনভাবে সালমান কিংবা সালমানের ছবির সাথে প্রাসঙ্গিক?

ক’দিন আগে সালমান শাহ’র নাম জড়িয়ে একটি সিনেমার কথা উঠে। গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরের ভিত্তিতে সালমান শাহ’র সিলেটের বাড়িতে নিজের নতুন ছবি ‘ধ্যাৎতেরিকি’-এর শ্যুটিং করছেন ‘বসগিরি’ খ্যাত নির্মাতা শামিম আহমেদ রনি, এমন খবর সালমানের মায়ের দৃষ্টিগোচর হতেই ক্ষেপে গিয়েছিলেন তিনি।

ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে এমন ভিত্তিহীন খবরের প্রতিবাদও তখন করেছিলেন সালমানের মা নীলা চৌধুরী। শুধু তাই না, এভাবে সালমান শাহের নাম বিক্রি করে যারা নিজেদের কাজ হাসিল করে নিতে চায় তাদেরকে শাসিয়েও দেন সালমানের মা।

তবে সত্যিই কি সালমানের প্রতি ভালোবাসা থেকে নাকি, ধান্দা হাসিলের জন্য ‘মুখোশ মানুষ’ সালমানের নামে উৎসর্গ করেছেন নির্মাতা ইয়াসির আরাফাত জুয়েল তা জানা যায়নি। তবে এরইমধ্যে ছবিটির মোটামুটি প্রশংসা শোনা যাচ্ছে। ছবিতে প্রধান তিনটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন আদনান ফারুক হিল্লোল, নওশিন ও কল্যাণ কোরাইয়া।