মেইন ম্যেনু

কয়েকশ’ ককটেল বিস্ফোরণ

মুন্সীগঞ্জে আ.লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে ১৫ জন গুলিবিদ্ধসহ আহত ৬০

নাসরিন আক্তার, মুন্সীগঞ্জ থেকে : মুন্সীগঞ্জ সদরের দুইটি ইউনিয়নে নির্বাচনী আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র আওয়ামী লীগ ও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী গ্রুপের দুই পক্ষের সংঘর্ষে অন্তত ১৫ জন গুলিবিদ্ধসহ অন্তত ৬০ জন আহত হয়েছে। এ সময় উভয় পক্ষের লোকজন তিন শতাধিক ককটেল বিস্ফোরণ ও শতাধিক রাউন্ড গুলিবর্ষণের ঘটনা ঘটায়। রোববার দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে বিকেল সাড়ে ৪ টা পর্যন্ত সাড়ে তিনঘন্টা ধরে মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের নৌকার প্রার্থী রিপন পাটোয়ারী ও আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থীী মহাসিনা হক কল্পনার সর্মথকদের মধ্যে এ ঘটনা ঘটে। একই সময় মোল্লাকান্দি লাগোয়া ইউনিয়ন আধারার আওয়ামীলীগ দলীয় নৌকা প্রার্থী সোহরাব হোসেন ও বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী সামসুল কবিরের সর্মথকদের মধ্যেও সংর্ঘষের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে পুলিশ সুপার বিপ্লব বিজয় তালুকদারের নেতৃত্বে পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে গেলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। ওদিকে, গ্রেপ্তার এড়াতে আহতদের ঢাকার বিভিন্ন সরকারি ও প্রাইভেট ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ও নৌকা প্রতীকের প্রার্থী রিপন পাটোয়ারির ও সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা মহাসিনা হক কল্পনার সমর্থকরা আমঘাটা এলাকায় সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। এ সংঘর্ষ পাশ্ববর্তী চরডুমরিয়া, মোল্লাকান্দি, কংশপুরা, রাজারচর, সামারচর ও মহেষপুরে গ্রামে ছড়িয়ে পড়ে। বিদ্রোহী প্রার্থী মহাসিনা হক কল্পনার সর্মথকদের গ্রাম ছাড়া করার লক্ষে গ্রাম গুলোতে হঠাৎ হামলার চালানো হয় বলে অভিযোগ করা হয়েছে। এ সময় কয়েক শতাধিক ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। পাশাপাশি অন্তত ৫০ রাউন্ড গুলিবর্ষণ হয়। এতে উভয় পক্ষের অন্তত ৫০ জন আহত হয়েছে।

অপরদিকে, আধারা ইউনিয়নের বকুলতলা ও সোলারচর গ্রামে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের সোহরাব হোসেন ও সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বিদ্রোহী প্রার্থী আনারস প্রতীকের সামসুল কবিরের সর্মথকদের মধ্যে সংর্ঘষের ঘটনা ঘটেছে।

মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী রিপন পাটোয়ারি জানান, ৭ মহাসিনা হক কল্পনার সমর্থক ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক স্বপনের নেতৃত্বে তার সমর্থকরা , ৮ ও ৯ নং ওয়ার্ডের নৌকার সমর্থকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে হামলা চালায়। আনন্দপুর গ্রামে কাপড় দিয়ে বানানো নৌকার স্মারক তুলে নিয়ে টয়লেটে ফেলে দেয় স্বপন গং। ওই গ্রামের ৩০টি বাড়িঘর ভাঙচুর করা হয়।
তিনি দাবি করে বলেন, তার তিনজন সমর্থক গুলিবিদ্ধসহ ১৫-২০ জন আহত হয়েছে।

বিদ্রোহী প্রার্থী মহাসিনা হক কল্পনা বলেন, রিপন পাটোয়ারি ও তার ভাই সিপন পাটোয়ারির নেতৃত্বে মোল্লাকান্দিও গ্রামে গ্রামে হামলা চালায় সন্ত্রাসীরা। এ সময় তাদের গুলিতে তার ৮ জন সমর্থক গুলিবিদ্ধসহ ২২-২৫ জন ককটেলের আঘাতে আহত হয়েছে। তাদের উপর ফের হামলার ভয়ে ঢাকায় নিয়ে চিকিৎসা করাচ্ছেন বলে তিনি দাবি করেন।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইউনুচ আলী বলেন, এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এলাকার পরিবেশ শান্ত রয়েছে।