মেইন ম্যেনু

মুসলিম নারী শরিয়াহ ও মানবাধিকার

যখনই মুসলিম দেশগুলোতে নারীর অধিকার ইস্যুটি তোলা হয় পশ্চিমা মিডিয়ায়, সবসময়ে বিষয়টি আলোচনা করা হয় ইসলামের কাঠামোর মাঝে। কারণ, তাত্ত্বিকভাবে ধরে নেয়া হয় মুসলমান অধ্যুষিত রাষ্ট্রগুলো শরিয়াহ বা ইসলামি আইন অনেক ক্ষেত্রে মেনে না চললেও ইসলামের অন্তত মূলনীতিগুলো অনুসরণ করে থাকে। তবে এ প্রসঙ্গে আলোচনাটি হয়ে ওঠে প্রধানত অভিযোগমূলক। কারণ মুসলিম নারীদের প্রতি নির্যাতন-অবিচার-দুর্ব্যবহারের জন্য ইসলাম ও শরিয়াহকে দায়ী করা হয়। বাস্তবে কথিত সম্মান রক্ষার হত্যাকাণ্ড এবং নারীর যৌনাঙ্গ বিকৃতির মতো অপরাধের সাথে ইসলামের কোনোই সম্পর্ক নেই। এসব অপকর্ম ইসলামের পরিপন্থী।

ইসলামে নারীদের অবস্থান ও মর্যাদার বিষয়ে পাশ্চাত্যেই শুধু নয়, খোদ মুসলিম বিশ্বেও ব্যাপক বিভ্রান্তি বিরাজ করছে। এ জন্য মুসলিম রাষ্ট্রগুলোরও কিছু দায় রয়েছে। কারণ অনেক সময়ে ধর্মীয় গ্রন্থের ভাষ্য ভুলভাবে উপস্থাপন বা প্রয়োগ করা হয়। ফলে ধর্মের প্রকৃত শিক্ষার বাস্তবায়নের চেয়ে বেশি হতে দেখা যায় নিছক ‘ঐতিহ্য’ অনুসরণ।

খাদেমুল হারামাইন (অর্থাৎ মক্কায় মসজিদুল হারাম এবং মদিনার মসজিদে নববীর খাদেম), সৌদি বাদশাহ আবদুল্লাহ প্রথমবারের মতো সিদ্ধান্ত নিলেন ১৫০ সদস্যের শূরা পরিষদ বা পার্লামেন্টে ৩০ জন মহিলা নিয়োগের জন্য। এর আগে এতে সবাই ছিলেন পুরুষ। বাদশাহ ওই সিদ্ধান্ত নেয়ার সাথে সাথে বিতর্ক শুরু হয়ে যায় নেতৃস্থানীয় এবং সিদ্ধান্ত গ্রহণকারী পদে নারীর অধিষ্ঠানের অধিকার নিয়ে। দাবি করা হলো, নারীদের এ মর্যাদা দেয়া ইসলামি শরিয়াহর পরিপন্থী।

সৌদি আরবের সর্বোচ্চ ধর্মীয় কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনার পরই শূরা পরিষদের সদস্যপদে নারীদের মনোনীত করা হয়েছে। অর্থাৎ এ ব্যাপারে ধর্মীয় ব্যক্তিত্বদের অনুমোদন রয়েছে। আরো গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে, ইসলামের ইতিহাসের নিরিখে উল্লিখিত বিতর্কটি অপ্রয়োজনীয়। এই ইতিহাস এমন দৃষ্টান্তে পরিপূর্ণ, যাতে দেখা যায়, রাসূলুল্লাহ সা:-এর সময় থেকেই মুসলিম মহিলারা প্রভাব রাখার মতো উচ্চপদগুলোতে অধিষ্ঠিত ছিলেন। আর নারীদের গাড়ি চালানো থেকে বিরত রাখার ইস্যুটা সৌদি সমাজের ব্যাপার। এটা ধর্মীয় বিষয় নয়।

সৌদি আরবের মহিলারা স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক উভয় ক্ষেত্রেই উচ্চপর্যায়ে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। সমাজে তারা পালন করছেন সক্রিয় ও প্রভাবশালী ভূমিকা। তবু বলতে হয়, শরিয়াহ মোতাবেক মানবাধিকার ও সমতা নিশ্চিত করতে আমরা এখনো পারিনি। আশা করা যায়, শূরায় যেহেতু ৩০ জন নারী সদস্য তাদের আসন গ্রহণ করেছেন, নারীদের অধিকারের ইস্যুগুলো আরো জোর দিয়ে সুরাহা করা হবে।
মুসলিম বিশ্বে নারীরা সরকারপ্রধান, মন্ত্রী, পার্লামেন্ট সদস্য, রাষ্ট্রদূত, সামরিক-বেসামরিক কর্মকর্তার মতো উঁচু পদে রয়েছেন। আফগানিস্তান ও পাকিস্তানের মতো যে দেশগুলোকে পাশ্চাত্যের মিডিয়া নারী নিপীড়করূপে চিত্রিত করে থাকে, সেখানেও নারীরা বড় বড় পদে অধিষ্ঠিত।

যা হোক, এসব দেশে চরমপন্থীরা ইসলাম সম্পর্কে নিজেদের বিকৃত ধারণা এবং মন্দ কাজগুলোকে বৈধতা দেয়ার জন্য এর সাথে ধর্মীয় বাগাড়ম্বর জড়িয়ে ফেলে। তবে ইসলামে এমন কিছু নেই, যা (দৃষ্টান্তস্বরূপ বলা যায়) মেয়েদের শিক্ষালাভের অধিকারের কথা বলার কারণে কোনো কিশোরীকে হত্যার প্রয়াসকে সঠিক মনে করে। পাকিস্তানে ও বাংলাদেশে নারী হয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। এমনকি সোমালিয়ার মতো যে দেশ চরমপন্থীদের শাসন আর গৃহযুদ্ধের কালো ছায়া থেকে সবেমাত্র বেরিয়ে আসছে, সেখানেও পররাষ্ট্রমন্ত্রী হয়েছেন নারী। আফগান নারীরাও অন্ধকার বছরগুলো কাটিয়ে জনজীবনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে জোরালোভাবে নিজেদের তুলে ধরছেন। তারা পার্লামেন্ট ও সিভিল সোসাইটিতে ভূমিকা রাখছেন। নারীর ওপর নির্যাতন এবং তাদের মানবাধিকারের অস্বীকৃতির সাথে ইসলামকে জড়ানো বন্ধ করা প্রয়োজন। এটাই জোর দিয়ে বলা উচিত মুসলিম নারীদের সংগ্রাম এবং তাদের ন্যায্য অধিকার অর্জনের আকাক্সক্ষা অজ্ঞতার বিরুদ্ধে, সেই সাথে কায়েমি স্বার্থে ধর্মের অপব্যবহারের বিরুদ্ধে পরিচালিত সংগ্রাম।

ইসলামি সহযোগিতা সংস্থা (ওআইসি) ৫৭টি রাষ্ট্র এবং দেড় শ’ কোটি মুসলমানের প্রতিনিধিত্ব করছে। এই সংস্থা আন্তর্জাতিক আইন মোতাবেক এবং শরিয়াহর আওতায় নারীদের অধিকার প্রদানের পক্ষে জোরালো অভিমত দিচ্ছে। ২০০৮ সালে ওআইসি এর সদস্য দেশগুলোতে নারীদের অগ্রগতির লক্ষ্যে একটি ‘অ্যাকশন প্লান’ গ্রহণ করেছে। নারীরা যেসব সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে, সেগুলো মোকাবেলায় ওআইসির সদস্য দেশগুলোর অঙ্গীকার এতে পরিস্ফুট। এই পরিকল্পনার উদ্দেশ্য চারটি : নারীর দারিদ্র্য দূরীকরণ, টেকসই উন্নয়ন ও পর্যাপ্ত সম্পদ অর্জন; স্থানীয় থেকে জাতীয়পর্যায় পর্যন্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়ায় নারীর অংশগ্রহণ বৃদ্ধি করা, মানসম্মত শিক্ষা, স্বাস্থ্যসেবা এবং বর্ধিত অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে নারীর জন্য সমান সুযোগ সুবিধা সৃষ্টি এবং নারীর প্রতি সর্বপ্রকার বৈষম্যের উচ্ছেদ ও সহিংসতার অবসান।

এগুলো নিছক কাগুজে কথা নয়। এসব লক্ষ্য অর্জনের জন্য অনেক সিদ্ধান্ত, প্রকল্প ও কর্মসূচি নেয়া হয়েছে। তদুপরি ওআইসির সদস্যেরা একমত হয়েছেন যে, ‘ওআইসি নারী উন্নয়ন সংস্থা’ গঠিত হবে যার সদর দফতর থাকবে কায়রোতে। পর্যাপ্তসংখ্যক সদস্য রাষ্ট্র এই প্রস্তাব আনুষ্ঠানিকভাবে অনুমোদন করলে তা কার্যকর হবে।

২০১১ সালে ওআইসি প্রতিষ্ঠা করেছে ‘স্বাধীন স্থায়ী মানবাধিকার কমিশন’ (আইপিএইচআরসি)। মুসলিম বিশ্বে এটাই মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার স্বার্থে প্রথম কমিশন। ইতোমধ্যেই প্রতিষ্ঠিত, মানবাধিকার সংগঠনগুলোর বিকল্প হিসেবে নয়, বরং তাদের কাজকে পূর্ণাঙ্গ করা এর উদ্দেশ্য। ওআইসির তৎকালীন মহাসচিব একলেমেদ্দিন ইহসানোগলু এ কমিশনের পথনির্দেশক মূলনীতিগুলো তুলে ধরেছিলেন। তিনি বলেছিলেন, ইসলাম ও মানবাধিকারের মধ্যে দ্বন্দ্ব রয়েছে বলে অনেকের যে ভুল ধারণা, তা দূর করার লক্ষ্যে কমিশন কাজ করবে। মানবাধিকার সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রগুলোতে কাজ করার বিষয়ে অগ্রাধিকার নির্ণয় করা হবে এবং আস্থা অর্জনকে গুরুত্ব দেয়া হবে। ১৮ সদস্যের এই কমিশন এর প্রথম অধিবেশনে শিক্ষা ও উন্নয়নে নারীর অধিকারকে অগ্রাধিকার দেবে বলে স্থির করেছে। কমিশনের অন্তর্বর্তীকালীন চেয়ারপারসন হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন ইন্দোনেশিয়ার ড. সিতি রুহাইনি জুহায়াতিন। তিনি এ কমিশনের চারজন নারী সদস্যের অন্যতম।

ওয়াশিংটনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেছেন, মানবাধিকারের বিশ্বজনীন মূলনীতিগুলোর সাথে ইসলামের অসঙ্গতি আছে বলে যে ভুল ধারণা বিদ্যমান, বিশেষভাবে তা দূর করার লক্ষ্যে কমিশন কাজ করে যাবে বলে আশা করা যায়।

সত্যিকারের ইসলামি মূলনীতি ও মানবাধিকার প্রয়োগ এবং আন্তর্জাতিক অঙ্গীকার বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে ঘাটতি পূরণের জন্য মুসলিম দেশগুলো গভীরভাবে নিজেদের পর্যালোচনা করে দেখছে।

লেখিকা : সৌদি সাংবাদিক; ওআইসির মানবাধিকার কমিশনের অন্তর্বর্তীকালীন সচিবালয়ের সদস্য
ভাষান্তর : মোহাম্মদ আবু জাফর