মেইন ম্যেনু

মুসল্লীদের ফ্রি হজে যাওয়ার প্রস্তাব!

ধর্মপ্রাণ মুসল্লীদের ফ্রি হজে যাওয়ার প্রস্তাব দিচ্ছে ধর্ম মন্ত্রণালয়! তবে এ জন্য আগ্রহী মুসল্লীকে মন্ত্রণালয়ের একটি শর্ত পূরণ করতে হবে। শর্তানুসারে চলতি বছর সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজে যাওয়ার জন্য দেশের যে কোন নাগরিক ৪৫ সদস্যের হজ গমনেচ্ছু যোগাড় করতে পারলেই ওই দলের গাইড হিসেবে বিনা খরচে হজ করার সুযোগ পাবেন তিনি।

গত ২২মে (রোববার) ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সহকারি সচিব (হজ ২ ) শহীদুল্লাহ তালুকদার স্বাক্ষরিত চিঠিতে ধমপ্রাণ মুসল্লীদের এ প্রস্তাবনা দেয়া হয়।

চিঠিতে বলা হয়, ২০১৬ সালে অনুষ্ঠেয় হজ কার্যক্রম পরিচালনার জন্য সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ যাত্রীদের নিবন্ধন কার্যক্রম গত ১৫ মে শুরু হয়ে ৩০ মে পর্যন্ত চলবে। প্রাক নিবন্ধিত সকল হজ যাত্রীকে নিজ নিজ প্যাকেজ মোতাবেক অবশিষ্ট টাকা পরিশোধ করে নিবন্ধন করে পিলগ্রিম আইডি সংগ্রহ করতে অনুরোধ জানানো হয়েছে। এখন পর্যন্ত কেউ প্রাক নিবন্ধন না করলেও তিনি প্রাক নিবন্ধন করে নিবন্ধনও করতে পারবেন।

আরো বলা হয়, হজ নীতি ২০১৬ অনুসারে প্রতি ৪৫ জন হজ যাত্রীর জন্য ১ জন গাইড নেয়ার বিধান আছে। তাই নির্ধারিত সময়ের মধ্যে যে কোন ধর্মপ্রাণ ব্যক্তি ৪৫ জন সরকারিভাবে গমনেচ্ছু হজযাত্রী যোগাড় করে অর্থাৎ প্রাক নিবন্ধন করিয়ে নিজেই হজ গাইড হওয়ার সুযোগ পাবেন।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, চলতি বছর সরকারি ব্যবস্থাপনায় ১০ হাজার জনের হজে যাওয়ার সুযোগ থাকলেও এখনও পর্যন্ত নির্ধারিত কোটা পূরণ হয়নি। ১৯ মে পর্যন্ত সর্বশেষ প্রাপ্ত তথ্যানুসারে সরকারি ব্যবস্থাপনায় প্রাক নিবন্ধিত হজে গমনেচ্ছুর সংখ্যা মাত্র ৪ হাজার ৭১৭ জন অর্থাৎ এখনও পর্যন্ত অর্ধেক কোটাও পূর্ণ হয়নি। সরকারি ব্যবস্থাপনায় নিবন্ধন সম্পন্ন করেছেন মাত্র ১৭৯ জন। প্রাক নিবন্ধন করেও স্বেচ্ছায় বাতিল করেছেন ৩১ জন।

ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন জানান, বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় চলতি বছর প্রাক নিবন্ধন করেছেন ১ লাখ ৩৪ হাজার ৩১৮ জন। অথচ বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় কোটা রয়েছে মাত্র ৯১ হাজার ৭৫৮ জন। বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় বিভিন্ন হজ এজেন্সী তাদের সারাদেশে নেটওয়ার্কেও মাধ্যমে হাজী সংগ্রহ করে। কিন্তু সরকারিভাবে সে ধরনের হাজী সংগ্রহ না করানোর ফলে প্রাক নিবন্ধন সংখ্যায় কম।