মেইন ম্যেনু

মুস্তাফিজকে চিনলেন ভারতীয় সাংবাদিক

গত বুধবার ভারতের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচের আগে মাশরাফি বিন মর্তুজা বলেছিলেন, ‘ভারতের বিপক্ষে খেলা সবসময় একটু অন্যরকমের।’ এই ‘অন্যরকমের’ ব্যাখ্যা দিয়েছিলেন মাশরাফি। টাইগার দলপতির ভাষ্য,‘বিশ্বের সবাই ভারতের ম্যাচ দেখে। সেটা কোনো না কোনো কারণে। টপ টিম ভারতের সঙ্গে পারফর্ম করতে পারলে আত্মবিশ্বাস বেড়ে যায়। আর আমরা যখন বড় দলের সঙ্গে খেলি তখন কিন্তু সবার আগ্রহ বেশি থাকে।’

মাশরাফির কথায় স্পষ্ট, ভারতের বিপক্ষে ম্যাচে পারফর্ম করতে পারলে পুরো বিশ্বের নজর কাড়া যায়!

সেই সুনজর বৃহস্পতিবার কেড়ে নিয়েছেন তরুণ তুর্কী মুস্তাফিজুর রহমান। সাতক্ষীরার এই বাঁহাতি পেসার বৃহস্পতিবার ভারতের বিপক্ষে এমন কিছু করে দেখালেন তাতে পুরো ক্রিকেট বিশ্ব তাকে এক দিনেই চিনে ফেলল।

ফতুল্লা টেস্টের পর মিডিয়া কর্মীদের বহনকারী বাসে ভারতীয় এক সাংবাদিকের জিজ্ঞাসা,‘তোমাদের মুস্তাফিজটা আবার কে? নাম যে আগে একবারও শুনলাম না।’ পাশে থাকা বাংলাদেশের জ্যেষ্ঠ ক্রীড়া সাংবাদিক উত্তর দিলেন,‘এটা চমক, তোমাদের জন্যে রেখে দিছি।’

কোনো ম্যাচ খেলেছে আগে?
‘শুধু পাকিস্তানের বিপক্ষে একটি টি-টোয়েন্টি’।
‘ও। তার মানে, এখনো ডেব্যু হয়নি!’
যে চমকের ইঙ্গিত দিয়েছিলেন ওই বাংলাদেশি সাংবাদিক, অতিথি সাংবাদিক মনে হয় তা গ্রাহ্য করেননি। কিন্তু তিন দিনের মাথায় টের পেলেন ‘চমকটা’ কী?

মুস্তাফিজের বয়স এখনো ২০ বছর পার হয়নি। এ বয়সেই ওয়ানডে অভিষেকে ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে ৫০ রানে তুলে নেন ৫ উইকেট। ভারতের বাঘা বাঘা ব্যাটসম্যানরা তার বলে কুপোকাত হয়েছেন।

রোহিত শর্মা যিনি ওয়ানডের সর্বোচ্চ ইনিংসের মালিক (২৬৪)। তাকে আউট করে মুস্তাফিজের ধ্বংসযজ্ঞ শুরু। এরপর আজিঙ্কা রাহানে, সুরেশ রায়না, রবিচন্দ্রন অশ্বিন ও রবিন্দ্রর জাদেজাকে শিকার করেন এই খুদে টাইগার।

মুস্তাফিজ চমকে যখন একটির পর একটি উইকেট তুলে নিয়েছে বাংলাদেশ, তখন আঘাতের পর আঘাত লেগেছে ভারতীয়দের বুকে।

চমকটা যে খারাপ নয়, তা স্বীকার করলেন ভারতীয় সাংবাদিকরা। ‘নতুন হিসেবে চমৎকার। এভাবে যে দাপট দেখিয়ে আমদের ব্যাটসম্যানদের আউট করবে তা ওরাও ভাবতে পারেনি। আসলেই সে একটা চমক।’