মেইন ম্যেনু

মৃত্যুর আগে ফেসবুকে নটর ডেম কলেজছাত্রের শেষ স্ট্যাটাস

রাজধানীর মতিঝিল এজিবি কলোনির একটি বাসা থেকে মোহাম্মদ মিজানুর রহমান (১৯) নামে নটর ডেম কলেজের এক শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পুলিশের ধারণা শিক্ষার্থী ‘আত্মহত্যা’ করেছে। এ ঘটনার আগে নিহত মিজানুর তার ফেসবুক এ্যাকাউন্ট শেষ একটি স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন। যেখানে তিনি তার কষ্টের কথা তুলে ধরেছিলেন। সেখানে তিনি তার প্রেমিকার কথাও তুলে ধরেছিলেন।

মিজানুর রহমান সিরাজগঞ্জ জেলার শাহজাদপুর উপজেলার ব্রজবালা গ্রামের কৃষক ও ব্যবসায়ী রমজান আলীর একমাত্র ছেলে। মিজানুর ছাড়াও রমজান আলীর আরও দুই মেয়ে রয়েছে। তাদের বিয়ে হয়ে গেছে।

শনিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে রাজধানীর মতিঝিল এজিবি কলোনির এফ/৪৮/৪ ভবনের দ্বিতীয় তলার একটি কক্ষ থেকে এই শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠায় মতিঝিল থানা পুলিশ।

ফ্ল্যাটের মালিক সাইফুল ইসলামের বরাত দিয়ে মতিঝিল থানার এসআই রফিকুল ইসলাম জানান, মিজানুর রহমান তার এক সহপাঠী হিমেলকে নিয়ে এজিবি কলোনির ওই কক্ষে ভাড়া থাকতেন। ঈদের ছুটিতে তারা দুইজনই বাড়ি যায়। ২৩ জুলাই রাত সাড়ে ১২টার সময় বাড়ি থেকে ঢাকার বাসায় ফেরেন মিজানুর। শনিবার সকালে ফ্ল্যাটের মালিক সাইফুল ইসলাম জানালা দিয়ে লাশ ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পেয়ে থানায় খবর দেন।

তিনি আরও জানান, লাশ দেখে ধারণা করা হচ্ছে শুক্রবার শেষ রাতের দিকে সে বিছানার কাপড় দিয়ে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে গলায় ফাঁস দেওয়ায় তার মৃত্যু হয়েছে।

লাশ দেখতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের মর্গে আসা মাহমুদুন্নবী রেইন নামে তার এক বন্ধু বলেন, ‘দেড় বছর ধরে সিরাজগঞ্জে উল্লাপাড়ার বিজ্ঞান কলেজের এক তরুণীর সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক ছিল। শুক্রবার অন্য এক যুবকের সঙ্গে তার বিয়ে হয়ে যায়। এ কারণে মিজানুর আত্মহত্যা করে বলে মনে হচ্ছে। মিজানুর এসএসসিতে জিপিএ ৫ পেয়ে ঢাকায় এসে নটর ডেম কলেজে ভর্তি হয়। মানবিক বিভাগ থেকে সে এবার এইচএসসি দিয়েছে। মেয়েটি উল্লাপাড়া বিজ্ঞান কলেজ থেকে এইচএসসি দিয়েছে। তারা দুইজনেই বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষার জন্য রাজধানীর ফার্মগেইটে কোচিং করছিল।’

বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফ পাবলিক কলেজের শিক্ষার্থী মাহমুদন্নবী আরও বলেন, মিজানুর কাউকে কিছু বুঝতে দেয়নি। ঈদের পর ২৩ জুলাই বাড়ি থেকে ফেরার পর মিজানুর ২৪ জুলাই রাত ১১ টা ১৭ মিনিটে তার ফেসবুকে লেখেন : বন্ধুরা, মেয়েদের সঙ্গে প্রেম করো না। তারা ভাল ছেলে পেয়ে বিয়ে করে চলে যায়।

মিজানুরের ফেসবুক আইডিতে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে বাংলা ভার্সনে ইংরেজি অক্ষরে তার শেষ স্ট্যাটাসে লেখা ছিল- ‘বন্ধুরা তোমাদের সকলের জন্য আমার এই স্ট্যাটাস… জানি আমাদের মধ্যে অনেকেই প্রেম করে… কিন্তু সবাই জানে না এর শেষ পরিণতি কি??? আমি জানি শুনবা তোমরা??? শোন আর না শোন আমি বলব… তোমার সাথে মেয়েটির সেই প্রেম চলছে… হঠাৎ যদি মেয়েটার ভালো একটি বিয়ে আসে, তখন সে তোমায় ভুলে যাবে… তুমি যদি কোন কিছু করতে চাও তখন সে সবাইকে হাসি মুখে বলবে, আমি এই ছেলেকে চিনি না… এইটা ২০০% সিওর… তোমরা কেউ ব্যপারটা জানো কি জানো না, আমি সেটা আজ জানলাম।’