মেইন ম্যেনু

মৃত্যুর পরে কবর থেকে তুলে সুন্দর করে সাজিয়ে মৃতদেহ বিয়ে দেওয়া হয় যেখানে!

ছেলেমেয়ের বিয়ের জন্য কোন বাবা-মায়েরই না চিন্তা থাকে! এখন অবশ্য ছেলেমেয়েরা নিজেদের জীবনসঙ্গী বা সঙ্গিনী খুঁজে নেন নিজেরাই। কিন্তু মৃত সন্তানের জন্য পাত্র-পাত্রী খোঁজার ব্যপারটাকে কতটা পরিচিত বা ঠিক কতটা স্বাভাবিক আপনার কাছে? অবাক হলেও এটাই রীতি চিনের শাংজি প্রদেশে। এখানকার প্রাচীন বিশ্বাস হল, যদি পরিবারের কোনও ছেলে অবিবাহিত অবস্থায় মারা যান তাহলে মৃত্যুর পরেও তাঁর বিয়ে দিতে হবে। নইলে তাঁর আত্মা শান্তি পাবে না। তরম দুর্দশার শিকার হতে হবে মৃতের পরিবারকেও।

শাংজি প্রদেশে বহুদিন ধরে পালিত হয়ে আসছে এই সামাজিক রীতি। স্থানীয় জ্যোতিষীদের দেওয়া নির্দেশমতো মৃত ছেলের জন্য সন্ধান চলে মৃত মেয়ের। এই অঞ্চলের বেশিরভাগ পুরুষ খনিতে কাজ করেন। অনেকেই সেখানে অল্পবয়সেই প্রাণ হারান। অনেক সময়ই মৃত বরের জন্য মৃতা কনের সন্ধান পাওয়া দুষ্কর হয়ে দাঁড়ায়। অনেক সময় মৃতা কনের সন্ধান পেতে দেরি হয়ে গেলে তখনকার মতো সমাধিস্থ করে দেওয়া হয় মৃত যুবককে। পরে মৃতা কনের খোঁজ পাওয়া গেলে কবর থেকে তুলে ছেলের মরণোত্তর বিয়ে দেওয়া হয়।

শাংজি প্রদেশে একদল চোরা কারবারী রয়েছে যাঁদের কাজ সমাধি থেকে বিবাহযোগ্যা তরুণী বা যুবতীর দেহ তুলে এনে তা দরকারমতো জায়গায় যোগান দেওয়া। বিনিময়ে পরিস্থিতি অনুযায়ী চড়া দাম আদায় করে নেন ওই সব মৃতদেহের চোরা কারবারী।

চিনের অনেক সমাজতাত্ত্বিকরাই মনে করছেন, এই অদ্ভুত রীতি বন্ধ হওয়া প্রয়োজন। তবে হঠাত্ করে জোর করে এই রীতি বন্ধ করা যাবে না। এর জন্য ধীরে ধীরে সামাজিক এবং পরিবেশ সচেতনতা বাড়াতে হবে।