মেইন ম্যেনু

মৃত ব্যক্তির বিচার নিয়ে ট্রাইব্যুনালের ক্ষোভ

মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় ময়মনসিংহের মৃত ওয়াজ উদ্দিনকে পলাতক ঘোষণা করে বিচার শুরু করায় প্রসিকিউশন ও তদন্ত সংস্থার প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ট্রাইব্যুনাল। বিষয়টি খতিয়ে দেখতে প্রসিকিউশনকে মৌখিক নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিচারপতি শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বাধীন ২ বিচারপতির বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

এ সময় আদালতে চিফ প্রসিকিউটর গোলাম আরিফ টিপু, প্রসিকিটর হায়দার আলী ও ঋষিকেষ সাহা উপস্থিত ছিলেন।

পরে প্রসিকিউটর হায়দার আলী সাংবাদিকদের বলেন, ‘ট্রাইব্যুনাল বলেছেন, মৃত ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা চলতে পারে না। এটা আইন বিরুদ্ধ কাজ।’

তিনি বলেন, ‘এ বিষয়ে যাদের গাফিলতি আছে তা খতিয়ে দেখতে আদালত মৌখিকভাবে নির্দেশ দিয়েছেন’।

অপরদিকে আসামিপক্ষের রাষ্ট্রনিযুক্ত আইনজীবী গাজী এম এইচ তামিম বলেন, ‘মৃত ব্যক্তির বিরুদ্ধে বিচার শুরুর বিষয়টি ট্রাইব্যুনাল আমাকেও খতিয়ে দেখতে বলেছেন।’

এর আগে গতকাল একটি বেসরকারি চ্যানেল ‘মৃত ওয়াজ উদ্দিনকে পলাতক ঘোষণা করে ট্রাইব্যুনালে বিচার চলছে’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রচারিত হয়।’ প্রতিবেদনটি আজ ট্রাইব্যুনালের নজরে আসে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ট্রাইব্যুনালে ওয়াজ উদ্দিনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের ৭ মাস আগেই মারা গেছেন তিনি।

একাত্তরের হত্যা, গণহত্যা মামলার আসামি ওয়াজ উদ্দিন। তার বিরুদ্ধে ২০১৪ সালের অক্টোবরে তদন্ত শুরু করে তদন্ত সংস্থা। শুরু থেকেই পলাতক দেখিয়ে তাকে ধরতে অভিযান অব্যাহত আছে বলেও পুলিশের রিপোর্টে বলা হয়।

গত ১১ ডিসেম্বর ওয়াজ উদ্দিনকে পলাতক ঘোষণা করে, তারপক্ষে রাষ্ট্রীয় খরচে আইনজীবী নিয়োগ দিয়ে বিচার শুরুর আদেশ দেন ট্রাইব্যুনাল।

কিন্তু ইউনিয়ন পরিষদ থেকে দেয়া মৃত্যু সনদে দেখা যায়, ২০১৬ সালের ৭ মে ওয়াজউদ্দিন মারা গেছেন। মৃত্যুর ৯ দিন পর তাকে আদালতে হাজিরে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তির আদেশ আসে ট্রাইব্যুনাল থেকে। পরে তাকে হাজির করতে দুইটি জাতীয় দৈনিকে বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়।

এই মামলার অপর আসামি রিয়াজ উদ্দিন ফকির কারাগারে আছেন।