মেইন ম্যেনু

মৃত সন্তান প্রসব ভাঙ্গুড়ার বড়াল ক্লিনিকে : রোগির স্বামীকে মারপিটের অভিযোগ

পাবনার ভাঙ্গুড়ার শরৎনগর বাজারের বড়াল ক্লিনিকে এক রোগিনীর স্বামীকে মারপিট করে টাকা পয়সা কেড়ে নেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগে জানা গেছে, চাটমোহর উপজেলার মির্জাপুর গ্রামের বদিউজ্জামানের স্ত্রী বুলবুলি খাতুন (২২) এর সন্তান প্রসবের ব্যাথা শুরু হলে ভাঙ্গুড়ার ওই ক্লিনিকে নিয়ে যাওয়া হয় মঙ্গলবার রাতে।

সেখানে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করানোর পর ডাক্তার আসবে বলে রোগিনীকে রাখা হয়। কিন্তু সারা রাতেও ডাক্তার না আসায় রোগিনীর অবস্থা খারাপ হয়ে যায়। বুধবার সকালে রোগিনীর স্বামী বদিউজ্জামান স্ত্রীকে পাবনা নিয়ে যাবার কথা বললে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ পরীক্ষা-নিরীক্ষার ১ হাজার ২০ টাকা আদায় করে।

কিন্তু রোগিকে না ছেড়ে ডাক্তারের ফি বাবদ ৫ হাজার টাকা দাবি করে। এ নিয়ে বাক-বিতন্ডার সৃষ্টি হলে ক্লিনিকের লোকজন বদিউজ্জামানকে মারপিট করে প্রায় ২ হাজার টাকা ছিনিয়ে নিয়ে বের করে দেয়। পাবনা নিয়ে বুলবুলি খাতুনকে সিজার করা হলে মৃত সন্তান পাওয়া যায়।

রোগিনীর স্বামী বদিউজ্জামান অভিযোগ করেন, ‘বড়াল ক্লিনিকে সিজার করা হবে এবং ডাক্তার আসছেন বলে আমাদের সারারাত রাখা হয়। সকালে আমার স্ত্রীর অবস্থা খারাপ হলে আমি পাবনা নিয়ে যেতে চাই। তখন আমাকে মারপিট করে টাকা কেড়ে নিয়ে বের করে দেওয়া হয়। তাদের কারণেই আমার স্ত্রীকে পাবনা নিতে দেরী হয় এবং আমার প্রথম সন্তানটি মৃত পেলাম।’ তিনি এর বিচার দাবি করেন। ভাঙ্গুড়ার বড়াল ক্লিনিকের মালিক কামরুজ্জামান দাবি করেছেন, বুলবুলি খাতুন নামের কোন রোগি তারা ভর্তি করেননি। অনেক রোগিই আসেন। আবার চলে যান। এ রকম কেউ আসেনি।