মেইন ম্যেনু

মেকআপ পছন্দ করেন না? জেনে নিন “নো মেকআপ” লুক তৈরির উপায় (দেখুন ভিডিওতে)

বর্তমান সময়ে একটি কথা প্রায় শুনতে শোনা যায়, তা হল- “নো মেকআপ”। নো মেকআপ বলতে মেকআপ ব্যবহার না করা নয়। এর অর্থ হল মেকআপ করা হবে কিন্তু তা বোঝা যাবে না। মেকআপের মাধ্যমে নিজের প্রকৃত রূপ ফুটিয়ে তোলাকে নো মেকআপ বলা হয়। একটা সময় ছিল যখন মেকআপ বলতে জমকালো সাজকে বোঝানো হত, বর্তমান সময়ে এই ট্রেন্ড আর প্রচলিত নেই। অল্প কিছু উপাদান দিয়ে সেরে নিতে পারেন নো মেকআপ লুক।

যা যা লাগবে:

ফ্ললেস নুড ফাউন্ডেশন ( ত্বকের রং অনু্যায়ে বেছে নিন, উজ্জ্বল ত্বকের জন্য ৪০ এবং ৩০ শেডটি ব্যবহার করতে পারেন)
মেবিলাইন কনসিলার
সেফোরা স্মুদি এবং ব্রাইটনিং কনসিলার
মাশকারা
আইল্যাশ কার্লার
আই পেনসিল
চকলেট ব্রোঞ্জ পাউডার
গোলাপী ব্লাশন
ব্রাশ

যেভাবে করবেন:

১। প্রথমে মুখ ভাল করে ধুয়ে পরিষ্কার করে নিন।

২। তারপর আইভ্রু পেন্সিল দিয়ে হালকা করে ভ্রু জোড়া এঁকে ফেলুন। একটু ভিন্নভাবে আঁকার জন্য গাঢ় বাদামী রঙের আই ভ্রু পেন্সিল দিয়ে ভ্রু জোড়া এঁকে নিতে পারেন।

৩। ত্বকে ময়েশ্চারাইজিং লোশন লাগিয়ে নিন।

৪। তারপর লিকুইড ফাউন্ডেশন গাল, কপাল, নাক, চিবুকে লাগিয়ে নিন।

৫। ব্রাশ দিয়ে ভাল করে মিশিয়ে নিন। এমন ভাবে মেশাবেন যেন ছোপ ছোপ দাগ না থেকে যায়।

৬। ভাল করে লাগানোর পর আবার ফাউন্ডেশন লাগিয়ে নিন। এবার এক শেড কম ফাউন্ডেশন ত্বকে লাগিয়ে নিন।

৮। ব্রাশ দিয়ে ভাল করে মুখে ম্যাসাজ করে লাগিয়ে নিন।

৯। এবার কনসিলার দিয়ে দুই চোখের নিচে দিয়ে দিন। তার চেয়ে এক শেড কম কনসিলার দিয়ে কনসিলারে নিচে লাগিয়ে নিন। ভাল করে ব্লাশ দিয়ে ম্যাসাজ করে লাগান।

১০। এবার আইল্যাশ কার্ল করে নিন। তারপর মাশকারা ব্যবহার করুন।

১১। আই পেনসিল দিয়ে চোখের পাতার নিচে হালকা করে আঁকুন। খুব বেশি গাঢ় করে আইলাইনার দিবেন না।

১২। নিচের পাঁপড়িগুলোতেও মাশকারা লাগিয়ে নিন।

১৩। চকলেট ব্রোঞ্জ দিয়ে হালকা করে গাল, চিবুক এবং কপালে লাগিয়ে নিন।

১৪। সবশেষে হালকা গোলাপি ব্লাশন দুই গালে লাগিয়ে নিন। খুব বেশি ব্লাশন ব্যবহার করবেন না।

১৫। এখন একটি ন্যাচারাল লিপস্টিক ঠোঁটে লাগিয়ে নিন।

১৬। ব্যস হয়ে গেল নো মেকআপ লুক।

পুরো পদ্ধতিটি দেখে নিন ভিডিওতে