মেইন ম্যেনু

মেঘনার গ্রাসে বিলীন হয়ে যাচ্ছে ভোলার প্রাচীন জনপদ

মেঘনার করাল গ্রাসে বিলীন হয়ে যাচ্ছে ভোলার প্রাচীন জনপদ রামদাসপুর। অব্যাহত ভাঙ্গনে সহায় সম্বল হারিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন সেখানকার হাজার হাজার মানুষ। ভিটে-বাড়িসহ সর্বস্বহারা এসব মানুষের এখন ঠিকানা হয়েছে পার্শ্ববর্তী গ্রামের রাস্তা ও বেড়িবাঁধে। আর পানি উন্নয়ন বোর্ড জানিয়েছে, ভাঙ্গন রোধে বরাদ্দ পাওয়া গেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জেলার উত্তরে সীমানার শুরুতেই সদর উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়ন। প্রমত্ত মেঘনা আর এর শাখা ইলিশা নদী জেলার মূল ভূখন্ড থেকে বিচ্ছিন্ন করে রেখেছে রামদাসপুরের চর সিতারামপুর, হাজিপুর, মজিদপুর, সন্তোষপুর, গনেশপুর ও চর সুলতানি মৌজাকে।
গত ২ বছরের ভাঙ্গনে এলাকার প্রায় ১৫ হাজার একর ফসলি জমি, ৫ হাজার ঘরবাড়িসহ প্রায় বহু প্রাচীন স্থাপনা মেঘনার গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। ভয়াবহ ভাঙ্গনের মুখে রয়েছে চর সুলতানি মৌজাটি। ফলে এখানকার মানুষ ভিটেবাড়ি হারিয়ে পার্শ্ববর্তী এলাকার রাস্তা ও বাঁধে মানবেতর জীবন যাপন করছেন।

আবার নদী ভাঙ্গনে সর্বস্ব হারিয়ে বেঁচে থাকার তাগিদে অনেকে পাড়ি জমিয়েছেন পার্শ্ববর্তী লক্ষ্মীপুর জেলায়। এলাকার হাজার হাজার মানুষ মানবেতর জীবনযাপন করছে উল্লেখ করে তাদের পুনর্বাসনের দাবি জানান স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান রেজাউল হক মিঠু চৌধুরী। আর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আবদুল হেকিম জানালেন, ভাঙ্গন রোধে বরাদ্দ পাওয়া গেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
রাজাপুর ইউনিয়নে ৩৬ হাজার মানুষের বাস। এর মধ্যে ভাঙ্গনের শিকার প্রায় ১০ হাজার মানুষ।