মেইন ম্যেনু

মেসি নেই, আছেন রোনালদো

সদ্যশেষ হওয়া ইউরো টুর্নামেন্টে ফাইনাল ম্যাচে ইনজুরিতে পড়েন রিয়াল মাদ্রিদের তারকা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। অন্যদিকে বার্সেলোনার স্ট্রাইকার লিওনেল মেসি কয়েকদিন আগে আর্জেন্টিনার হয়ে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে উরুগুয়ের বিপক্ষে খেলতে গিয়ে ইনজুরিতে পড়েন।

এতে লা-লিগার দুই তারকা খেলোয়াড়ই ছিলেন ইনজুরিতে। দু’জনই নিজ দলের সঙ্গে গত কয়েকদিন অনুশীলন করেছেন। অবশ্য লিওনেল মেসি আলভেজের বিপক্ষে আজকের ম্যাচে খেলতে পারবেন না বলেই জানিয়েছে স্প্যানিশ দৈনিক ‘মার্কা’। মেসির অনুপস্থিতির দিন বার্সেলোনার আক্রমণভাবে দায়িত্ব থাকবে তার কাঁধে।

নেইমার বার্সেলোনায় যোগ দেয়ার পর একই সঙ্গে মেসি ও নেইমার কোনো ম্যাচ মিস করেননি।

বার্সেলোনার হয়ে মৌসুমের প্রথম দুই ম্যাচ খেলেছেন মেসি। কিন্তু দেশের হয়ে অলিম্পিক ও বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব খেলার জন্য বার্সেলোনার হয়ে মাঠে নামেননি নেইমার। তবে ১০০ দিন পর ফিরে তিনি কাতালানের ক্লাবটির হয়ে মাঠে নামবেন।

অন্যদিকে দীর্ঘদিন পর আজ মাঠে দেখা যাবে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোকে। ২০০৯ সালে রিয়াল মাদ্রিদে যোগ দেয়ার পর এই প্রথম লা-লিগায় মৌসুমের শুরুর ম্যাচ খেলতে পারেননি রোনালদো। তবে তাকে ছাড়াই প্রথম দুই ম্যাচ জিতেছে তার দল। আর রিয়াল মাদ্রিদ আজ রয়েছে বিরল এক রেকর্ড স্পর্শ করার পথে।

১৯৬১ সালের পর অনেক নামিদামি খেলোয়াড় খেলেছে রিয়াল মাদ্রিদে। কিন্তু ওই বছরে গড়া একটি রেকর্ড এখনো ভাঙতে পারেনি তারা। স্প্যানিশ লা-লিগায় রিয়ালের সর্বাধিক টানা ১৫ ম্যাচ জেতার রেকর্ড ছিল ১৯৬০-৬১ মৌসুমে। মিগুয়েল মুনোজের শিষ্যরা সেবার ওই রেকর্ড গড়ে।

কিন্তু ৫৬ বছর পর এবার তাদের সামনে সে রেকর্ড গড়ার সুযোগ। গত মৌসুমে টানা শেষ ১২ ম্যাচ জেতে রিয়াল মাদ্রিদ। আর এবার প্রথম দুই ম্যাচই জিতেছে। আজ ওসাসুনাকে হারাতে পারলেই ১৯৬০-৬১ মৌসুমের সেই রেকর্ড স্পর্শ করবে তারা। তবে লা-লিগায় সর্বাধিক টানা ১৬ ম্যাচ জেতার রেকর্ড বার্সেলোনার দখলে।

২০১০-১১ মৌসুমে পেপ গার্দিওলার অধীনে তারা ওই রেকর্ড গড়ে। রিয়ালের সামনে এ রেকর্ড স্পর্শ করারও সুযোগ। ওসাসুনাকে হারনোর পর পরের ম্যাচে এস্পানিওলকে হারালেই বার্সেলোনার রেকর্ড স্পর্শ করবে রিয়াল।