মেইন ম্যেনু

মেয়র আনিসুলের অন্যরকম হুঁশিয়ারি!

নানা প্রতিশ্রুতি দিয়ে মেয়র হওয়ার পর থেকে নানামুখি ব্যস্ততায় দিন কাটছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল হকের।কখনো নেমে পড়ছেন উচ্ছেদ অভিযানে।কখনো আবার সিটি করপোরেশনের অসাধু কর্তকর্তাদের বদলিতে।এছাড়া মাঝে মধ্যেই দুর্নীতিবাজ ও সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে তার হুঙ্কার শোনা যায়।

বুধবার রাজধানীর মোহাম্মদপুরস্থ সূচনা কমিউনিটি সেন্টারে এক মতবিনিময় সভায় মাস্তানদের বিরুদ্ধে হুঁশিয়ারি দিয়ে মেয়র আনিসুল বললেন,‘যেই মাস্তানি করবে তাকেই সাইজ করে দেয়া হবে।’ এর আগে আরও এক অনুষ্ঠানে আনিসুল হক বলেছিলেন, “আমি মাস্তান হয়ে গেছি, আমাকে ইইউস করুন।”

সর্বশেষ অনুষ্ঠানে বলেন,‘আমি জনগণের প্রতিনিধি। জনগণ আমাকে দায়িত্ব দিয়েছে।দায়িত্বশীল হিসেবে আমি দায়িত্বে অবহেলা পছন্দ করি না।মাস্তানি করেছিল তাই ১৬৯ কর্মকর্তা কর্মচারীকে বদলি করে দেয়া হয়েছে।যেই মাস্তানি করবে তাকেই সাইজ করে দেয়া হবে।’

‘সার্বিক আইনশৃঙ্খলা রক্ষা,জনগণের চলাচলে ফুটপাত দখলমুক্তকরণ,মাদক-সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ নির্মূলে জনগণের ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়ে তোলার লক্ষ্যে সিটি করপোরেশনের সহযোগিতায় এ মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়।

মেয়র আনিসুল হক বলেন,‘চাইলেই কিন্তু আমি পারি রাজধানীর ফুটপাত দখল মুক্ত করতে।কিন্তু হুটহাট করে তা করতে চাই না। কারণ এই ফুটপাত দখলের পেছনে যেমন প্রভাবশালীদের হাত রয়েছে। তেমনই খেটে খাওয়া ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের আয় রোজগারের পথ এখানে।তাই আস্তে ধীরে ফুটপাত দখল মুক্তকরণের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা ঢাকার সৌন্দর্য বাড়াতে চাই।এজন্য পরিকল্পনা মাফিক কাজও চলছে। রাজধানীর ৫৬টি ফুট ওভার ব্রিজকে ফুল দিয়ে সাজানো হবে।৫ দশমিক ৬ কি.মি রাস্তার দেয়ালে নকশা লাগানো হয়েছে। আগামী জুনের মধ্যে এ কার্যক্রম শেষ করা হবে।’

আনিসুল বলেন, ‘আগামী বছরের শেষের আগেই আমরা পুরো ঢাকাকে আলোকিত দেখতে চাই।রাতের ঢাকা যেন দিনের মতোই আলোকিত দেখা যায় সেজন্য পুরো রাজধানীকে এলইডি লাইটের আওতায় নিয়ে আসা হচ্ছে।’

এসময় মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক সম্পাদক লে: কর্ণেল (অব:) মো. ফারুক খান, ডিএমপির তেজগাঁও বিভাগের এডিসি ওয়াহেদুল ইসলাম,এডিসি (ট্রাফিক) সাইফুল হক, শেরে বাংলা নগর থানা, আদাবর ও মোহাম্মদপুর থানার ওসি, স্থানীয় কাউন্সিল ও নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।