মেইন ম্যেনু

মেয়েরা লোভী, তাই সেক্সডলের সঙ্গে সংসার!

বিখ্যাত মার্কিন পরিচালক রয়ান গ্লোসিংয়ের ‘লার্স অ্যান্ড দ্য রিয়েল গার্ল’ সিনেমাটার কথা মনে আছে নিশ্চয়ই। সেখানে তিনি একজন মেয়ে ও সিলিকনের ডলের সঙ্গে বন্ধুত্বের দৃষ্টান্ত দিয়েছিলেন। যেখানে তিনি ডলকে তার গার্লফ্রেন্ড হিসেবে তুলে ধরেছেন। সেই সিনেমার ঘটনাটি এবার বাস্তবে রূপ দিলেন জাপানের এক ব্যক্তি।

৬১ বছর বয়সি সেনজি নাকাজিমা রাবারের তৈরি এক সেক্স ডলের প্রেমে পড়েছেন। তার নাম দিয়েছেন তিনি সাওরি। বেশ কয়েক মাস হলে তারা দেশটির রাজধানী টোকিওতে একটি বাসাভাড়া নিয়ে সংসার পাতিয়েছেন। পুতুলটিকে নিয়ে ঘুরে বেড়াতে পছন্দ করেন তিনি। তাই হুইল চেয়ারে করে ঘুরে বেড়ান মন মতো জায়গায়। তাকে নিয়েই শপিংয়ে যান, বেড়াতে যান৷ মাঝে মধ্যে নৌকা ভ্রমণও করে থাকেন।

সাত বছর আগে সাওরিকে কিনে আনেন সেনজি। তখন তার স্ত্রী কাজের প্রয়োজনে তার সঙ্গে থাকতেন না। অবশ্য সাওরির সঙ্গে তখন শুধু যৌনকর্মটাই মুখ্য ছিল। কিন্তু ধীরে ধীরে তা ভালোবাসায় পরিণত হয়েছে বলে মনে করেন। সেনজির আগের স্ত্রীর ঘরে দুই সন্তানও আছে। তাদের ছেড়ে এসে তিনি সাওরির সঙ্গে ঘর বেঁধেছেন।

সেনজি বলেন, ‘আমি বর্তমানের যৌক্তিক মানুষের সঙ্গে সম্পর্কের বিষয়ে বিরক্ত। তারা হৃদয়হীন হয়ে থাকে। সাওরি আমার জন্য সে কোনো সিলিকনের পুতুল নয়। রক্তমাংসের স্ত্রীর মতো ঝগড়াও করবে না সে। যা বলবো তাই সাওরি শুনবে।

তিনি আরও বলেন, ‘সাওরির অনেক সাহায্যের দরকার। তবে সে এখন আমার জন্য সেরা জীবনসঙ্গী, যে আমার জীবনকে উন্নত করেছে।’

তবে শুধু সেনজিই নয়, এর আগে রোবটকে বিয়ে আলোড়ন সৃষ্টি করেন চীনের জিজিয়াং প্রদেশের বাসিন্দা ঝেং জিয়াজিয়া (৩১)। পেশায় রোবট বিশেষজ্ঞ ঝেং বছরখানেক আগে রোবটটি তৈরি করেন। ঠিক মানুষের মতো দেখতে সুন্দরী রোবটটির নাম দেন ইংইং। বুদ্ধিমতী ইংইং কিছু চীনা অক্ষরও পড়তে পারে।

সূত্র: ওয়াশিংটন পোস্ট।






মন্তব্য চালু নেই