মেইন ম্যেনু

মোবাইলে দিনে ৫০০ টাকার বেশি রিচার্জ বন্ধ

মোবাইল ফোনে দিনে ৫০০ টাকার বেশি রিচার্জ করতে পারবে না প্রিপেইড গ্রাহকরা। সর্বোচ্চ রিচার্জের এ সীমা কার্যকর করতে সেল ফোন কোম্পানিগুলোকে নির্দেশনা দিয়েছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)।

এজন্য ২০০৮ সালের এ সংক্রান্ত নির্দেশনা সংশোধন করে মঙ্গলবার মোবাইল অপারেটরদের কাছে চিঠি দিয়েছে সংস্থাটি। তবে পোস্ট পেইড গ্রাহকদের বিষয়ে কোনো সীমা বলা হয়নি। চিঠিটি বিটিআরসি পরিচালক ( সিস্টেম অ্যান্ড সার্ভিসেস) লেফটেন্যান্ট কর্নেল মোহাম্মদ জুলফিকার স্বাক্ষরিত।

তবে এ নিয়ে অপারেটরদের পক্ষ থেকে সিদ্ধান্তটির বিষয়ে বিরুপ মনোভাব দেখা দিয়েছে। তারা বলছেন, ইন্টারেনেট ডেটা ও ভয়েসের কিছু প্যাকেজে এ ৫০০ টাকার বেশি রিচার্জ করা লাগে। এ ক্ষেত্রে গ্রাহকেরা সমস্যায় পড়তে পারেন। এ নির্দেশনা ডেটা প্যাকেজের জন্য প্রযোজ্য কিনা এ সম্পর্কে চিঠিতে স্পষ্ট করে কিছু বলা নেই।

এ নির্দেশনার যৌক্তিকতার বিষয়ে চিঠিতে উল্লেখ না থাকলেও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সূত্রে জানা গেছে, অবৈধ ভিওআইপি বন্ধে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

সূত্র জানিয়েছে, গত ২১ অক্টোবর ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয় পরিদর্শনকালে জয় অবৈধ কলের লাগাম টেনে ধরতে সিমের রিচার্জ মাত্রার একটা সীমা নির্ধারণের পরামর্শ দেন।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি অবৈধ পথে বিদেশ থেকে কল যাওয়া-আসার পরিমাণ বেড়ে গেছে । বিটিআরসির তথ্যমতে, জুনে যেখানে বৈধভাবে গড়ে প্রতিদিন ১২ কোটি মিনিট আন্তর্জাতিক কল এসেছে, এখন তা কমে ৯ কোটির নিচে নেমেছে।

চিঠিতে বলা হয়েছে, প্রিপেইড গ্রাহরা দিনে ৩০০ টাকা ও মাসে এক হাজার টাকার বেশি ব্যালেন্স ট্রান্সফার করতে পারবেন না । আগের নির্দেশনায় দিনে ট্রান্সফারের সীমা ছিল ছিল ১০০ টাকা। প্রিপেইড গ্রাহকেরা সর্বোচ্চ পাঁচ হাজার টাকার ব্যালেন্স রাখতে পারবেন।

বর্তমানে মোবাইল গ্রাহকের মধ্যে ৯৮ শতাংশের বেশি প্রি-পেইড গ্রাহক । আর দেশের ইন্টারনেট গ্রাহকদের মধ্যে ৯৭ শতাংশ মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যবহার করেন।

বিটিআরসি’র হিসাবে গত নভেম্বর শেষ নাগাদ দেশে ছয়টি মোবাইল অপারেটরের মোট গ্রাহক ১৩ কোটি ৩১ লাখ ৬৩ হাজার। আর ইন্টারনেট সংখ্যা পাঁচ কোটি ৩৯ লাখ ৪১ হাজার। এর মধ্যে ৫ কোটি ১৪ লাখ ৬৮ হাজার মোবাইল ইন্টারনেটের গ্রাহক ।