মেইন ম্যেনু

যুক্তরাষ্ট্রে কপাল খুলছে অবৈধ শিক্ষার্থীদের

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত অবৈধ অভিবাসী শিক্ষার্থীদের কপাল খুলতে যাচ্ছে। এসব অভিবাসী যাতে দেশটিতে উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করতে পারে সে লক্ষ্যে ওবামা প্রশাসন নতুন একটি পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। অভিবাসীরা যুক্তরাষ্ট্রের যেসব স্কুল ও কলেজে ভর্তি হতে পারবে মঙ্গলবার তার একটি তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে।

একইসঙ্গে শিক্ষার্থীদেরকে বৃত্তি প্রদানের ব্যবস্থাও রাখা হয়েছে এবং কীভাবে তা পাওয়া যাবে সেবিষয়েও বিভিন্ন কৌশল তুলে ধরা হয়েছে। দেশটির শিক্ষা বিভাগ ৬৩ পৃষ্ঠার একটি হ্যান্ডবুক প্রকাশ করেছে। ওই হ্যান্ডবুকে অবৈধ অভিবাসীদের স্কুলে ভর্তি করতে সহযোগিতার আহ্বান জানানো হয়েছে। শিক্ষার্থীদের বৈধ পরিচয় যাতে না চাওয়া হয় সেবিষয়ে স্কুল কর্তৃপক্ষকে সতর্ক করা হয়েছে।

অবৈধ অভিবাসীদের মূলধারার মার্কিন সমাজে আনতে প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার জন্য এটি সবচেয়ে ব্যয়বহুল একটি পদক্ষেপ। যদিও দেশটিতে অভিবাসীদেরকে অবৈধ হিসেবে দেখা হয়। ওবামা বলেন, তরুণ অভিবাসীদেরকে স্বাগত জানানো উচিত। এছাড়া বিভিন্ন দেশ থেকে আসা এসব অভিবাসীদেরকে সরকারি সহায়তার আশ্বাস দেন তিনি।

তবে অভিবাসীদেরকে এসব সুবিধা দেওয়ায় দেশের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে বলে বিশেষজ্ঞরা বলছেন। দেশটির পলিসি স্টাডিজ বিভাগের পরিচালক জেসিকা ভগ্যান বলেন, আমি এ সিদ্ধান্তকে মার্কিন নিরাপত্তার জন্য হুমকি হিসেবে দেখছি। কেননা আপনি যদি সঠিক পদ্ধতি অনুসরণ না করেন তাহলে কোনো না কোনো ভাবে তাদের অধিকার লঙ্ঘন করবেন।

এর আগে, ২০১২ সালে ওবামা প্রশাসন অভিবাসী ইস্যুতে ড্রিম অ্যাক্ট নামে একটি আইন পাস করেন। ওই আইনে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত অবৈধ অভিবাসীদের দেশটিতে থাকার অনুমতি দেয়া হয়। এছাড়া অভিবাসীদের বিভিন্ন সেক্টরে কাজের সুযোগ, ড্রাইভিং লাইসেন্স ও সামাজিক নিরাপত্তা কার্ড প্রদানের ব্যবস্থা করা হয়। মূলত মার্কিন মূলধারার সমাজে অভিবাসীদেরকে অন্তর্ভূক্ত করতে এসব করা হয়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এবার নতুন করে অবৈধ তরুণ-তরুণীদেরকে শিক্ষাগ্রহণের সুযোগ দেওয়া হলো।

সূত্র : ওয়াশিংটন টাইমস।