মেইন ম্যেনু

যুক্তরাষ্ট্রে মুসলমানদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা আরোপের দাবি

রিপাবলিকান পার্টির প্রেসিডেন্ট পদপ্রত্যাশী ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রে মুসলমানদের প্রবেশের উপর ‘পূর্ণ’নিষেধাজ্ঞা আরোপের দাবি জানিয়েছেন। সম্প্রতি

ক্যালিফোর্নিয়ায় বন্দুকধারী এক দম্পতির প্রাণঘাতী হামলার পরিপ্রেক্ষিতে তিনি এই আহ্বান জানান।

তবে এর আগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা এবং ডেমোক্র্যাট দলের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হিলারী ক্লিনটন বলেছেন, আমাদের যুদ্ধ মুসলমানদের বিরুদ্ধে নয় আমাদের যুদ্ধ সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে।তবে রিপাবলিকান নেতা ডোনাল্ড ট্রাম্পের এই বক্তব্যের পর যুক্তরাষ্ট্রে অস্থিরতা বৃদ্ধি পাবে।বিশেষজ্ঞরা বলছেন, তার এই বক্তব্যের মধ্যদিয়ে আইএসের বিরুদ্ধে চলমান পশ্চিমাদের লড়াই বাধাগ্রস্ত হতে পারে।

রিপাবলিকান নেতা ডোনাল্ড বলেন, জরিপে দেখা যাচ্ছে আমেরিকানদের প্রতি মুসলমানদের ‘ঘৃণা’ পুরো জাতিকেই ঝুঁকিতে ফেলে দিতে পারে। যতক্ষণ পর্যন্ত আমাদের প্রতিনিধিরা নির্ণয় করতে না পারেন যে আসলে কি ঘটছে, ততক্ষণ পর্যন্ত মুসলমানদের জন্য সীমান্ত বন্ধ রাখা উচিত।

তার এই বক্তব্যের সমালোচনা করে এটিকে অ-মার্কিনসুলভ বক্তব্য বলে অভিহিত করেছে হোয়াইট হাউজ।

হোয়াইট হাউজের এক বিবৃতিতে বলা হয়, তার এ বক্তব্য মার্কিন মূল্যবোধ ও জাতীয় নিরাপত্তার স্বার্থের পরিপন্থী।

এদিকে ট্রাম্পের এই বিবৃতি প্রকাশের পরপরই রিপাবলিকান পার্টিতে তার প্রতিদ্বন্দ্বী বেন কারসেন আহ্বান জানান, যুক্তরাষ্ট্রে সফররত সকল বিদেশীদের ‘নিবন্ধন ও নজরদারি’র আওতায় আনতে হবে।

অন্যদিকে অপর এক রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট পদপ্রত্যাশী সিনেটর লিন্ডসে গ্র্যাহাম সকল প্রেসিডেন্ট পদপ্রত্যাশীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন যে তারা যেন ডোনাল্ড ট্রাম্পের এই বিবৃতির কড়া সমালোচনা করে।

সাবেক ফ্লোরিডা গভর্নর জেব বুশের বক্তব্য, ট্রাম্প একজন ‘বিকৃত মস্তিষ্ক’ মানুষ।

উল্লেখ্য, গত সপ্তাহেই ক্যালিফোর্নিয়ায় এক মুসলিম দম্পতির গুলিতে ১৪ জন প্রাণ হারায়। ধারনা করা হচ্ছে ওই দম্পতি ইসলামী কট্টরপন্থায় উদ্বুদ্ধ ছিল।