মেইন ম্যেনু

যুক্তরাষ্ট্রে সৌদি আরবের সম্পদের পাহাড়

অবশেষে যুক্তরাষ্ট্রে বিনিয়োগ করা সৌদি আরবের সম্পদের পরিমাণের তথ্য প্রকাশিত হয়েছে। দেশটির মার্কিন ট্রেজারি ডিপার্টমেন্টে জানিয়েছে সৌদি আরব যুক্তরাষ্ট্রকে এ পর্যন্ত ১১৭ বিলিয়ন ডলার ঋণ দিয়েছে।

এবারই প্রথমবারের মতো মার্কিন ট্রেজারি ডিপার্টমেন্ট আনুষ্ঠানিকভাবে বিশ্বের বৃহত্তম তেল রপ্তানিকারক দেশটির যুক্তরাষ্ট্রকে দেওয়া ঋণ সম্পর্কে তথ্য প্রকাশ করলো।

যুক্তরাষ্ট্রকে ঋণদানকারী দেশগুলোর সৌদি আরব ১৩ তম। তবে সৌদি আরবের চেয়েও বেশি ঋণ যুক্তরাষ্ট্রকে দিয়েছে চীন ও জাপান। মার্চ পর্যন্ত তাদের ঋণ ১০০ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে।

বিশ্বের বৃহত্তম ঋণগ্রস্ত দেশ বিশ্বের বৃহত্তম অর্থনীতি দেশ যুক্তরাষ্ট্র। ১৯৭০ সাল থেকে মার্কিন ট্রেজারি ডিপার্টমেন্ট বিদেশি ঋণদানকারী দেশগুলোর তালিকা প্রকাশ বন্ধ রাখে। ওই সময় থেকে সৌদি আরবের ঋণদাণের বিষয়টিও এড়িয়ে যাওয়া হতো। তবে সোমবার সেই অবস্থান থেকে সরে এসে ঋণদানকারী দেশগুলোর তালিকা ও ঋণের পরিমাণ প্রকাশ করা হয়।

ট্রেজারি ডিপার্টমেন্টে তথ্য অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রের তৃতীয় বৃহত্তম ঋণদাতা দেশ হচ্ছে কেম্যান আইল্যান্ডস। ৬০ হাজার লোকের এই দেশটি যুক্তরাষ্ট্রকে ২৬৫ বিলিয়ন ডলার ঋণ দিয়েছে। এই দেশটিতে বিশ্বের অন্যতম করস্বর্গের দেশ। কেম্যান আইল্যান্ডের মতোই আরেক ক্ষুদ্র দেশ বারমুডা যুক্তরাষ্ট্রকে ৬৩ বিলিয়ন ডলার ঋণ দিয়েছে। এটিও অন্যতম জনপ্রিয় করস্বর্গের দেশ।

প্রসঙ্গত, টুইন টাওয়ারে আল-কায়েদার সন্ত্রাসী হামলায় সৌদি সংশ্লিষ্টতা পাওয়ার অভিযোগ তুলে সিনেটে ক্ষমতাসীন রিপাবলিকানরা সৌদি আরবের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারির প্রস্তাব করে। এর জের ধরে রিয়াদ ও ওয়াশিংটনের সম্পর্কে চিড় ধরে এবং সৌদি আরব যুক্তরাষ্ট্র থেকে তাদের সম্পদ ফিরিয়ে নেওয়ার হুমকি দেয়।