মেইন ম্যেনু

যুবককে দিয়ে বান্ধবীকে ধর্ষণ করালো দুই স্কুলছাত্রী !

যৌন রোমাঞ্চ উপভোগের জন্য নিজের বান্ধবীকেই এক যুবককে দিয়ে ধর্ষণ করালেন দুই স্কুলছাত্রী! আর সেটি পরবর্তীতে উপভোগের জন্য মোবাইল ফোনের ভিডিওতে ধারণ করা হয়। কিছুদির পর বান্ধবিকে ধর্ষণের সেই ভিডিও অনলাইনে ছেড়ে তারা।

এমনই একটি ঘটনা ঘটেছে ভারতের উত্তরপ্রদেশের বরেলির শেরগড়ে। বরেলির শেরগড়ে ওই তিন বান্ধবীর সঙ্গে এমন ঘটনাটি খবর দেয় স্থানীয় গণমাধ্যম।

স্থানীয় গণমাধ্যম জানায়, নিজেদের বান্ধবীকে ধর্ষণ করানোর জন্য ওই দুই বান্ধবী স্থানীয় এক যুবকের সঙ্গে আঁতাত করে দুই স্কুলছাত্রী। পরে দুই বান্ধবীর পরামর্শে ওই যুবককে দিয়ে নিজেদের বান্ধবীকে ধর্ষণের পরিকল্পনা করে।

পুলিশ জানিয়েছে, দুই বান্ধবীর পরিকল্পনামতে যুবকটিকে নিয়ে ওই বান্ধবীর ঘরে ঢোকে তারা। তারপরই ভেতর থেকে দরজা বন্ধ করে দেওয়া হয়। এরপর একটি দেশি পিস্তল দেখিয়ে ওই বান্ধবীকে ভয় দেখিয়ে কাবু করে নেয় ওই দুই বান্ধবী ও সঙ্গে থাকা যুবকটি। এ সময় এক দুই বান্ধবীকে ওই নির্যাতিতা বান্ধবীকে ধরে রাখে অপর দিকে পুরুষ যুবকটি ওই বান্ধবীকে ধর্ষণ করে।আর গোটা ঘটনার ভিডিও করে দুই স্কুলছাত্রী। ধর্ষণের এক পর্যায়ে নির্যাতিতা জ্ঞান হারালে দুই বান্ধবী ও যুবকটিকে নিয়ে কেটে পড়ে।

তবে এখানেই ঘটনার শেষ নয়। এরপর সেই ভিডিও নিজেরা উপভোগ করে। কিছুদিন পর বান্ধবীকে ধর্ষণের ধারণকৃত ওই ভিডিও অনলাইনে ছেড়ে দেয় তারা।

এদিকে ঘটনাটি প্রকাশ্যে অনলাইনে আসার পর প্রতিবাদে সরব হন স্থানীয় বাসিন্দারা। স্থানীয় বাসিন্দাদের উত্তেজনার এক পর্যায়ে পুলিশ অভিযুক্তদের গ্রেফতার করবে বলে আশ্বাস দেয়।

শনিবার ওই ঘটনায় অভিযুক্ত দুই স্কুলছাত্রীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তাদের জিজ্ঞাসাবাদের পর শেরগড় থানার পুলিশ জানিয়েছে, শুধুমাত্র যৌন রোমাঞ্চ উপভোগের জন্য বান্ধবীকে ধর্ষণ করিয়েছে ধৃত দুই স্কুলছাত্রী। গতকাল আদালতে তোলার পর তাদের সরকারি জুভেনাইল হোমে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে তাদের দেওয়া তথ্যমতে অভিযুক্ত ওই যুবককেও গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তার নাম আমন। সে স্থানীয় বাসিন্দা। দীর্ঘদিন ধরে ওই দুই বান্ধবীর সঙ্গে আমনের পরিচয় ছিলো। তবে এ বিষয়ে আমন কিছু বলতে রাজি হয়নি।

পুলিশ জানায় সোমবার তাকে আদালতে তোলা হবে। তারপর আদলতের আদেশ অনুযায়ী তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।