মেইন ম্যেনু

যেখানে বেকারদের ভাতা চাকুরিজীবীর সমান!

এই প্রস্তাবকে ‘মুড়ি, মিছরি একদর’ বলবেন কিনা, তা পাঠকদের বিচার্য। খবরটি হলো, সুইজাউরল্যান্ডে প্রত্যেক বাসিন্দাই একই পরিমাণ অর্থ উপার্জন করবেন। অর্থাৎ, যিনি চাকরি করছেন, তিনিও যা বেতন পাবেন, বেকার ভাতা বাবদও সরকার সেই একই পরিমাণ অর্থ বেকারদের দেবে। যদি সরকারের এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হয়ে যায়, তাহলে সুইজােরল্যান্ডই বিশ্বের প্রথম দেশ হবে, যেখানে চাকরিজীবী ও বেকার– সকলের সমান আয় হবে।।

বেকার জীবন মানেই পরের ভরসায় দিন গুজরানের ইতি হতে চলেছে সুইজাুরল্যান্ডের যুবসম্প্রদায়ের। সে দেশের বুদ্ধিজীবী মহলের একাংশ সরকারকে প্রস্তাব দিয়েছে, প্রত্যেক নাগরিকের আয় সুনিশ্চিত করা হোক। এবং একই আয় করে দেওয়া হোক। প্রস্তাবে বলা হয়েছে, প্রত্যেক বাসিন্দার আয় ১ হাজার ৭০০ ইউরো করে দেওয়া হবে (প্রায় ২ লাখ টাকা)। যে ব্যক্তি চাকরি করবেন, তিনিও এই টাকাই বেতন পাবেন। যিনি বেকার, তিনিও ওই একই অর্থ পাবেন সরকারের কাছ থেকে ভাতা বাবদ। এখানেই শেষ নয়। বাচ্চাদের জন্যও ৪৩০ ইউরো করে ভাতার চালু করার প্রস্তাব বিবেচনা করছে সুইস সরকার।

সম্প্রতি সুইজারল্যান্ডের বুদ্ধিজীবী মহল একটি সমীক্ষা চালিয়ে দেখেন, দেশের একটা বড় অংশের মানুষের পর্যাপ্ত রোজগারের উপায় থাকলেও, তারা কাজ করতে চাইছেন। মাত্র এক তৃতীয়াংশ মানুষ বাড়িতে বসে থাকার পক্ষপাতি। তাই সরকার যদি ভাতা সুনিশ্চিতও করে দেয়, তাহলেও কেউ বাড়িতে বসে থাকতে চাইবে না। কাজ করবে।

প্রস্তাবটি যদি গৃহীত হয়, তাহলে সুইস সরকারের কোষাগার থেকে বছরে ১৪৩ বিলিয়ন ইউরো খরচ হবে।- সংবাদমাধ্যম