মেইন ম্যেনু

যেন ২০১২ সালের পুনরাবৃত্তি !

ঢাক-ঢোল প্রস্তুত ছিল। ছিল হাজারো রঙ। পুরো বাংলাদেশ কেঁপে যেত বাঘের গর্জনে।

কিন্তু কিছুই হলো না। উৎসবের মঞ্চে পানি ঢেলে দিল বেরসিক বৃষ্টি, ভারত। রোববার এশিয়া কাপ টি-টোয়েন্টি ফাইনালে বাংলাদেশকে ৮ উইকেটে হারিয়ে শিরোপা জিতে নিয়েছে ভারত।

২০১৬ সালের পর ২০১২ সালেও এরকমটি হয়েছিল। পার্থক্য শুধু এবারের খেলাটি টি-টোয়েন্টি। ২০১২ সালে ছিল ওয়ানডে। তবে দুই আসরেই অদ্ভুত মিল।

২০১২ সালের এশিয়া কাপ বাংলাদেশের জন্যে ছিল স্বপ্নের মত। স্বপ্নের শুরুটা ছিল হার দিয়ে। পাকিস্তানের বিপক্ষে হার দিয়ে শুরু করা বাংলাদেশ পরবর্তীতে ভারত ও শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে ফাইনালে ওঠে। কিন্তু হট ফেভারিট ফাইনালে স্বপ্নের মধুর সমাপ্তি হয়নি। স্বপ্নভঙ্গ হয়েছে কোটি বাঙালির। ষোলকোটি বাঙালি কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে এক হয়েছিল লাল-সুবজের পতাকা উড়াতে। মুশফিকের দলের সঙ্গে জয়গান গাইতে। কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিহাসে একট্টা বাংলাদেশকে হার মানতে হয়।

পাক্কা চারবছর পর আবার এক হয়েছিল বাংলাদেশ। টানা তৃতীয়বারের মত আয়োজকের ভূমিকায় থাকা বাংলাদেশ আবারো নিজেদের উদ্বোধনী ম্যাচে হারের তিক্ত স্বাদ গ্রহণ করে। প্রতিপক্ষ ছিল ভারত। কিন্তু পরবর্তী ম্যাচগুলোকে দৃশ্যপট পরিবর্তন। এশিয়া কাপের নতুন দল সংযুক্ত আরব আমিরাতকে হারিয়ে সঠিক পথে ফিরে আসে বাংলাদেশ। এরপর ক্রিকেটের দুই পরাশক্তি শ্রীলঙ্কা ও পাকিস্তানকে হারিয়ে আবারো ফাইনালে বাংলাদেশ। কাকতালীয়ভাবে ফাইনালে বাংলাদেশর প্রতিপক্ষ ভারত। সেই ভারতের কাছে হেরেই শিরোপা হাতছাড়া বাংলাদেশের।

এশিয়া কাপের পরবর্তী আয়োজন হবে দুই বছর পর। ২০১৮ সালের এশিয়া কাপ অবশ্য হবে ওয়ানডে ফরম্যাটে।



« (পূর্বের সংবাদ)