মেইন ম্যেনু

যেভাবে পরিবর্তিত হচ্ছে বর্তমান ফ্যাশন ইন্ডাস্ট্রি

লাইভ টেলিকাস্ট এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো আসার আগে হাই ফ্যাশন ছিল অনেকটা রহস্যজনক। সাধারণ মানুষের ধরা ছোঁয়ার বাইরে ছিল ফ্যাশন চিন্তা ভাবনা। ফ্যাশন রানওয়ে শো গুলো ছিল অনেকটা ফিল্ম সেটের মতো যেগুলো শুধু ম্যাগাজিনে প্রকাশিত হতো। সাধারণ দর্শক শুধু আশা করতো যেন পরবর্তী মাসে রেড কার্পেটের ঐ পোশাকগুলো মার্কেটে পাওয়া যায়।

কিন্তু এখন দেখা যায় রানওয়ে এবং ক্রেতাদের মধ্যে দূরত্ব অনেকটা কমে এসেছে। গত সপ্তাহে ‘বারবেরি’ এর প্রধান সৃজনশীল এবং প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ক্রিস্টোফার বেইলি পুরো ফ্যাশন ইন্ডাস্ট্রিকে তাক লাগিয়ে দেন যখন তিনি মডেলদের ক্ষেত্রে দীর্ঘদিন ধরে চলে আসা ফ্যাশন শো-য়ের নারী ও পুরুষ মডেলদের বর্জন করেন। এছাড়াও তিনি ঘোষণা দেন নির্দিষ্ট একটি অংশ থাকবে যেখানে ক্রেতারা শোয়ের পরপরই পোশাক অর্ডার করতে পারবে। যদিও এই সিদ্ধান্ত ৬ মাস পর বাতিল করা করা হয়।

কিন্তু সবচেয়ে বিস্ময়কর ছিল বেইলির নতুন সংগ্রহের শোয়ের পূর্ববর্তী ঘোষণাটি, যা সেপ্টেম্বরে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। তিনি ঘোষণা দেন সংগ্রহের সবগুলোই শো শেষ হওয়ার ঠিক পর থেকেই বিক্রয়ের জন্য প্রস্তুত থাকবে।

বেইলির কথা অনুযায়ী ‘এখন দেখ, এখনই কিনে ফেল’– হতে হাচ্ছে বারবেরির পরবর্তী ধাপ। এভাবে সরাসরি সম্প্রচার, সামাজিক মাধ্যমে প্রচার এবং রানওয়ে থেকে সরাসরি ক্রয়ের মাধ্যমে ইন্ডাস্ট্রির পরিসর দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে।

বেইলি সি.এন.এন. কে বলেন ‘আমার মনে হয় ক্রেতাদের জন্য এটা বলা হতাশাজনক যে, আপনাকে নিশ্চিত করতে হবে যে ইন্ডাস্ট্রি কীভাবে চলছে, এমনকি যদিও আমরা এটা সাধারণ মানুষের কাছে অন্যরকমভাবে উপস্থাপন করি।’

পরবর্তী লক্ষ্য হচ্ছে পোশাকগুলো তাৎক্ষণিকভাবে আন্তর্জাতিক ক্রেতাদের কাছে পৌঁছান। পোশাকগুলো বিভিন্ন রকম আবহাওয়ার জন্য উপযুক্ত। বেইলি বলেন, ‘ঠিক এই মুহূর্তে বিশ্বের কিছু অংশ গরমে কষ্ট পাচ্ছে এবং অন্য একটি অংশ ঠাণ্ডায় জমে যাচ্ছে। সুতরাং এটা একটু উদ্ভট চিন্তা, যদি আমরা শুধু একটি অঞ্চলের জন্য পুরো সংগ্রহটি তৈরি করি।’

বেইলির এই সিদ্ধান্তের পরদিন আমেরিকান ডিজাইনার টম ফোর্ড বলেন, ‘বর্তমান বিশ্ব যা ধীরে ধীরে অনেক তাৎক্ষণিক হয়ে যাচ্ছে, এমন সময়ে কোন একটি সংগ্রহ প্রদর্শনীর চার মাস পর বাজারে আসাটা একটি প্রাচীন আমলের আইডিয়া এবং তা এই যুগে কোনভাবেই মানানসই নয়।’