মেইন ম্যেনু

যেসব কারণে টিভি দেখা আপনার স্বাস্থ্যের জন্য খারাপ!

টিভি দেখা, বিশেষ করে বড় একটা সময় ধরে টিভির সামনে বসেই থাকাটা আপনার স্বাস্থ্য এবং মানসিকতার বড় ধরণের ক্ষতি করতে সক্ষম। শুধু বসে থাকার ফলেই যে ক্ষতি হচ্ছে তা শুধু নয়। বরং আমরা টিভিতে যা দেখছি সেটাও আমাদের ওপরে প্রভাব ফেলছে। রোমান্টিক টিভি সিরিয়াল থেকে শুরু করে বিভিন্ন বিজ্ঞাপন আসলে আপনার উপকারের বদলে ক্ষতিই করছে বেশি।

১) আপনার ভুঁড়ি বাড়াতে পারে

টিভির সামনে বসে থাকার কারণে কী ভুঁড়ি বাড়ে? বা। হার্ভার্ডের অধ্যাপক স্টিভ গর্টমেকার বিজনেস ইনসাইডারকে জানান, এর চাইতেও জরুরী ব্যাপার হলো বিভিন্ন অস্বাস্থ্যকর খাবারে বিজ্ঞাপন। এগুলো আমাদেরকে আজেবাজে ফাস্ট ফুড খেতে উৎসাহিত করে ফলে আমাদের ভুঁড়ি বাড়ে। একই মত WebMD এরও।

২) ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বাড়তে পারে

বেশিক্ষণ ধরে টিভির সামনে বসে থাকলে বাড়তে পারে আপনার ডায়াবেটিসের ঝুঁকি। দৈনিক যতো বেশি ঘণ্টা টিভির সামনে বসে থাকেন আপনি, ততই বাড়ে এই ঝুঁকি। ঝুঁকি বাড়ার পরিমাণ প্রতি ঘণ্টায় ৩.৪ শতাংশ। অফিসে বসে থাকার তুলনায় টিভির সামনে বসে থাকলে ক্ষতি বেশি হয় কারণ টিভির সামনে বসলে আমরা একেবারেই নড়াচড়া করি না বললেই চলে।

৩) প্রজননক্ষমতার জন্য খারাপ হতে পারে

এটা অবশ্য দেখা গেছে যে বেডরুমে টিভি দেখলে দাম্পত্যে আকর্ষণ জোরালো হয়। কিন্তু হার্ভার্ডের এক গবেষণায় দেখা যায়, যেসব পুরুষ সপ্তাহে ২০ ঘন্টার বেশি টিভি দেখেন তাদের স্পার্ম থাকে ৪৪ শতাংস কম সেসব মানুষের তুলনায় যারা টিভি দেখেন না। টিভি দেখার বদলে শরীরচর্চায় সময় কাটালে বরং স্পার্ম কাউন্ট বাড়ে।

৪) আপনার সম্পর্কে কাঁটা হয়ে দাঁড়াতে পারে

টিভিতে দেখা রোমান্টিক গল্পগুলোতে আপনি যতো বেশি বিশ্বাস করবেন, ততই আপনার নিজের সম্পর্কে অনীহা তৈরি হবে। লাইভ সায়েন্স থেকে জানা যায়, এগুলোতে মগ্ন হয়ে থাকলে নিজের সঙ্গীর সাথে সম্পর্কে তৈরি হতে পারে অযৌক্তিক অসন্তোষ। শেষ পর্যন্ত আপনার সম্পর্ক ভেঙ্গেও যেতে পারে এক কারণে।

৫) টিভি দেখার ফলে বাচ্চার মুখে কথা ফুটতে দেরি হতে পারে

তিন বছরের আগে টিভি বেশি দেখা হলে এ সময়ে বাচ্চার ভাষার ওপরে দখল নিতে দেরি হয়। শুধু তাই নয়, টিভির প্রতি আসক্তি তৈরি হলে বাইরে সময় কাটানোর বদলে সে সারাদিন এর সামনেই বসে থাকতে পারে, যা স্বাস্থ্যের জন্য মোটেই ভালো নয়।

৬) বাচ্চাদেরকে করে তুলতে পারে আক্রমণাত্মক

বাচ্চারা টিভি অথবা ভিডিও গেমসে সন্ত্রাস দেখলে সেটা শিখে যায়। সব বাচ্চাই এক নয়। কিন্তু মিডিয়াতে হিংস্রতা দেখলে তারা নিজদের জীবনেও সেটা গ্রহণ করে নিতে পারে। বড় হয়ে তারাও হয়ে উঠতে পারে হিংস্র মানুষ।

৭) এটা মানুষকে একা করে দেয়

হাফিংটন পোস্টের মতে একটি গবেষণায় দেখা যায়, একাকীত্ব এবং বিষণ্ণতার অনুভূতির সাথে টিভি দেখার সম্পর্ক আছে। ঘণ্টার পর ঘন্টা টিভি দেখা মোটেই নিরীহ কোনো কাজ নয়। শুধু তাই না ইলেক্ট্রনিকসের সংস্পর্শে বেশিক্ষণ কাটানো উচিত নয়, বিশেষ করে বাচ্চাদের।

৮) ঘুম কেড়ে নেয়

টিভি হোক আর পিসি বা ট্যাবলেট হোক- স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে থাকলে আপনার ঘুমের সমস্যা হবেই। একটা সহজ সমাধান হলো, বেডরুম থেকে বের করে দিন টিভি।

৯) আমাদের আয়ু কমিয়ে দিতে পারে

সুস্থ, কমবয়সী মানুষদের ওপরে এক গবেষণায় দেখা যায় অকাল মৃত্যুর সাথে টিভি দেখার সম্পর্ক আছে। গত বছর আমেরিকান হার্ট এ্যাসোসিয়েশন জার্নালে প্রকাশিত এক গবেষণার তথ্য জানায় হাফিংটন পোস্ট। এই গবেষণা বলে, প্রতিদিন তিন ঘন্টা বা তার বেশি টিভি দেখলে মৃত্যুর ঝুঁকি বেড়ে যায়।