মেইন ম্যেনু

যেসব কারণে পরিবারের জ্যেষ্ঠ কন্যা হয়ে থাকেন বেশি সফল

অপরাহ উইনফ্রে, হিলারি ক্লিনটন, জে কে রাওলিং- নামগুলোর সাথে তো কম-বেশি আমরা সকলেই পরিজিত। পরিচিত তাদের কাজের সাথেও। কিন্তু এটা কি জানেন যে, এই ভিন্ন ভিন্ন ক্ষেত্রের প্রভাবশালী আর বিখ্যাত মানুষগুলোর ভেতরে একটি ব্যাপার একদম এক ছিল? আর সেই ব্যাপারটি হচ্ছে এই যে তাদের প্রত্যেকেই ছিলেন পরিবারের প্রথম সন্তান। এতদিন ধরে বিজ্ঞানী আর গবেষকেরা ব্যাপারটাকে কাকতালীয় বলেই উড়িয়ে দিতে চাইলেও সম্প্রতি একটি গবেষনার মাধ্যমে উঠে আসে এই তথ্য। আর তথ্যটি হচ্ছে এই যে, পরিবারের প্রথম সন্তান এবং মেয়ে- এ দুটোর মিশ্রণে জন্ম নেওয়া মানুষেরা অন্যদের চাইতে জীবনে একটু বেশিই সফল হয়ে থাকেন।

কিছুদিন আগে ইউনিভার্সিটি অব এসেক্সে পরিচালিত এই গবেষণাতে জানা যায় যে, বড় মেয়ের স্থানে যদি বড় ছেলে জন্ম নেয় তাহলে ছেলেটির ক্ষেত্রে সফল হওয়ার সম্ভাবনা মেয়েটির চাইতে তুলনামূলকভাবে ১৩ শতাংশ কম থাকে ( সাইন্টিফিক আমেরিকান )। পরিবারের বড় মেয়েরই সেক্ষেত্রে অনেক বেশি অসাধারন করে দেওয়ার মতন কাজ করার ইচ্ছা আর সম্ভাবনা থাকে। কেন? চলুন দেখে আসি কারণগুলো।

১. সহজাত প্রবণতা
বড় সন্তানদের ভেতরে নতুন কিছু একটা করে দেখানোর প্রবণতা জন্মগতভাবেই বেশি থাকে। যদি নোবেল প্রাইজের দিকে তাকানো যায় তাহলেও সেখানে আপনি অর্ধেক পুরষ্কারপ্রাপ্তদেরকেই খুঁজে পাবেন পরিবারের বড় সন্তান হিসেবে। আর নারীদের ভেতরে সবকিছুর প্রতি দৃষ্টিভ্গী আর সমাজ থেকে পাওয়া অভিজ্ঞতার প্রকৃতি পুরুষদের চাইতে একটু আলাদা হয়। ফলে সহজাতভাবেই টিকে থাকার, কিছু একটা করে দেখানোর ইচ্ছা কাজ করে তাদের মধ্যে( লাইফহ্যাক )।

২. দায়িত্ববোধের অনুভূতি
বড় সন্তান ও নারী হবার কারণে একজন মানুষের ভেতরে শুরু থেকেই একটা অন্যরকম দায়িত্ব কাজ করে। নিজের ছোট ভাই-বোনদেরকে দেখে রাখা, বাবা-মাকে একটু নিশ্চিন্ত করা এসবটাই থাকে পরিবারের বড় মেয়ের চিন্তার ভেতরে। কারণ, অন্যদের চাইতে নিজের পরিবার আর বাবা-মাকে একটু বেশিই কাছ থেকে দেখার সুযোগ হয় তার। ফলে এই দায়িত্ববোধের অনুভূতিই তাকে ব্যস্ত রাখে কাজে, সফল হবার আকাঙ্ক্ষায়।

৩. অনিশ্চয়তার ভয়
একজন পুরুষের ক্ষেত্রে এ বিষয়টি ততটা কাজ করেনা যতটা কাজ করে নারীর ক্ষেত্রে। তাও যদি আবার সেটা হয় পরিবারের বড় মেয়ে বেলায়। জন্মের পর থেকেই আমাদের সমাজ অনেক বেশি নির্ভরতাপ্রবণ মানুষ হিসেবে দেখতে থাকে নারীকে। প্রথমে বাবা, তারপর স্বামী এবং এরপর ছেলে। এই চক্র আর এর অনিশ্চয়তা, হীনমন্ম্যতা- এই সবটা মিলে একজন নারী বারবার প্রস্তুত হতে থাকে প্রথম থেকে। এছাড়াও খানিকটা বাড়তি সৃজনশীলতা তো নারী হিসেবে পাওয়া থাকেই তার ভেতরে। তাই সব মিলিয়ে একটা বড় কিছু অর্জন করার ইচ্ছা সবসময়ই অদম্যভাবে পোষণ করে নারী নিজের ভেতরে।