মেইন ম্যেনু

যে কারণে তাসকিনের কাছে ছুটে আসলেন শোয়েব আখতার!

তাসকিন আহমেদ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পা রেখে গতিময় বোলিং দিয়ে সমৃদ্ধ করেছেন বাংলাদেশের পেস আক্রমণ। এবার এশিয়া কাপেও মাশরাফি বিন মুর্তজার অন্যতম অস্ত্র তিনি। তবে বিস্ময়কর হল, এই তাসকিনের মাঝেই নিজেকে খুঁজে পান পাকিস্তানের সাবেক ফাস্ট বোলার শোয়েব আখতার। আর এমনটা জানিয়েছেন খোদ শোয়েব আখতার নিজেই।

শোয়েব আখতার বাংলাদেশে এসেছেন। তিনি এসেছেন এশিয়া কাপের ধারাভাষ্য দিতে। তাসকিনের খেলা তাকি স্মৃতি কাতর করে তুলেন। বেশ আগ্রহ নিয়েই তিনি দেখেন তাসকিনের বোলিং অ্যাকশন। আর সেখানেই তিনি নিজেকে খুঁজে পান। নিজের খেলোয়াড়ি জীবনের সোনালি দিনগুলোর কথাই মনে পড়ে যায় তাসকিনের খেলা দেখে।

সেদিন পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ শুরু আগের ঘটনা। খুব মনোযোগ দিয়ে সাদা রঙে রানআপের দাগ দিচ্ছিলেন তাসকিন আহমেদ। ঠিক তখনই কেউ একজন ডাকলেন তাকে। তাকিয়ে দেখেন শোয়েব আখতার! ‘ছোটবেলায় যার বোলিং দেখে উত্তেজিত হতেন, সেই মানুষটি কিনা এসেছেন আমার সাথে দেখা করার জন্য’! এমনটি ভেবেই ভীষণ উত্তেজিত তাসকিন।

এদিকে তাসকিন আর শোয়েব আখতারের মাঝে অনেক মিল। গতির ঝড় তুলে প্রতিপক্ষের ব্যাটিংকে কাঁপিয়ে দেওয়া, উইকেট তুলে নিয়ে দুটি হাত দুই দিকে ছড়িয়ে উড়ন্ত চিলের মতো উদযাপন করতেন শোয়েব আখতার। আর এখন একই ভঙিতে তেমন উদযাপনও করেন তাসকিন। কী আশ্চর্য মিল, তাদের দু’জনের মধ্যে।

আর তাই তো তাসকিনের মাঝেই নিজেকে ফিরে পান শোয়েব আখতার। আর সে জন্যই তাসকিনকে ডেকে কিছু পরামর্শও দিয়েছিলেন পাকিস্তানের সাবেক দ্রুতগতির ফাস্ট বোলার শোয়েব আখতার।

তাসকিন জানিয়েছেন, ‘তিনি আমার বোলিংয়ের প্রশংসা করলেন। সঙ্গে কিছু গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শও দিলেন। জোরে বল করার সঙ্গে সেটি কীভাবে আরও ওপরে ফেলা যায়, কীভাবে আরও ভয়ংকর বাউন্সার মারা যায়, কতটুকু রানআপ নিলে বোলিং আরও নিখুঁত হয়—এসব বললেন। সময় তো খুব বেশি পাইনি। বেশিক্ষণ কথা বলা যায়নি।’

এদিকে সেদিনের শোয়েব আখতারের পরামর্শ পেয়ে দারুণ উচ্ছ্বসিত তাসকিন। পাকিস্তানের বিপক্ষে শোয়েব আখতারের পরামর্শ কিছুটা কাজে লাগিয়েছেন তাসকিন। তিনি খুব আগ্রহ নিয়েই শোয়েব আখতারের পরামর্শও শুনেছেন। আর হয় তো সেদিন পাকিস্তানের বিপক্ষে সফলও হয়েছেন তাসকিন।