মেইন ম্যেনু

যে কারণে তিন রাত থানায় কাটালো অন্তঃসত্ত্বা কিশোরীটি

বাংলাদেশের চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে আইনি জটিলতায় পড়া এক অন্তঃসত্ত্বা কিশোরীকে গত তিন রাত থানায় কাটাতে হয়েছে বলে খবরে জানা যাচ্ছে।

চাঁদপুরের পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার বলেন, কিশোরীটি ‘অবৈধভাবে অন্তঃসত্ত্বা’ হয়ে পড়েছে এমন খবর পেয়ে তাকে পুলিশি হেফাজতে নেয়া হয় গত বৃহস্পতিবার এবং ওইদিন বিকেলেই আদালতে নেয়া হয়।

আদালত তাকে মায়ের জিম্মায় পাঠাতে চাইলে কিশোরীটি তাতে অনীহা প্রকাশ করে।

পুলিশ বলছে, কিশোরীটি মনে করছিল তার মায়ের কাছে গেলে মা গর্ভপাত ঘটাতে চাপ দিতে পারে। ফলে আদালত পরে তাকে রবিবার পর্যন্ত পুলিশের হেফাজতেই রাখতে বলে।

পুলিশ আরো বলছে, সাপ্তাহিক ছুটি শেষ হওয়ায় আজ মেয়েটিকে আবার আদালতে নেয়া হয়েছে।

তের বছরের এই মেয়েটি ছয় মাসের অন্তঃসত্ত্বা।

যেকোনো নারী ও শিশুকে কোনও কারণে আইনি জটিলতায় পড়লে তাকে থানায় না রেখে ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে রাখার নির্দেশনা বাংলাদেশের আইনে দেয়া আছে।

কিন্তু পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার উল্লেখ করছেন তার জেলাতে কোনও ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টার নেই। একারণে তাদের অনেক সময় সমস্যায় পড়তে হয় বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

এদিকে, স্থানীয় গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে জানা যাচ্ছে, চার মাস আগে মেয়েটি নিখোঁজ হবার পর তার মা একটি অপহরণ মামলা করেন।

এর জের ধরে পুলিশ গত বৃহস্পতিবার তাকে উদ্ধার করে আদালতে হাজির করে।

কিন্তু খবরে বলা হচ্ছে, ওইদিন আদালতে দেয়া জবানবন্দিতে মেয়েটি জানায় সে স্বেচ্ছায় তার প্রেমিকের সাথে পালিয়েছিল এবং এখন সে বাড়িতে ফিরতে চায় না।

কিন্তু এর জের ধরে যে পরস্পরবিরোধী পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে তার জের ধরে মেয়েটিকে তিনটি রাত কাটাতে হল সন্তান সম্ভবা একজন নারীর জন্য একেবারেই অনুপযুক্ত এক পরিবেশে। বিবিসি বাংলা