মেইন ম্যেনু

যে কারণে বিধ্বস্ত হয় কার্গো বিমান

কক্সবাজারে পাইলট ও তিন আরোহীসহ বেসরকারি কার্গো বিমান বিধ্বস্ত হওয়ার প্রাথমিক কারণ জানা গেছে। দুর্ঘটনার পরপরই দুজনকে উদ্ধার করা হয়, যাদের পরে মৃত ঘোষণা করা হয়। অপর দুই আরোহীর লাশ উদ্ধার করা হয়।

বুধবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে একটি বেসরকারি বিমানসংস্থার বিমানটি কক্সবাজার বিমানবন্দর থেকে উড্ডয়নের পরপরই সমুদ্রের (বঙ্গোপসাগরের ) নাজিরাটেক পয়েন্টে বিধ্বস্ত হয়।

বেসরকারি কোম্পানি ট্রু এভিয়েশন লিমিটেডের লোকাল এরিয়া ম্যানেজার অরূপ অধিকারী জানিয়েছেন, সকাল ৯ টা ৫ মিনিটে ‘আন্তনভ-২৬’ বিমানটি কক্সবাজার বিমান বন্দর যশোরের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়। এটি আকাশে ওঠার পর ৯ টা ১০ মিনিটের দিকে বিমানের পাইলট জানান যে, বিমানটির বাম পাশের ইঞ্জিল বিকল হয়ে গেছে।

অরূপ আরো জানান, এর পর পাইলট জরুরিভাবে অবতরণের অনুমতি চান। অনুমতিও দেয় কর্তৃপক্ষ। এর মধ্যে সকাল ৯ টা ২৫ মিনিটে বিমানটি নাজিরারটেক পয়েন্টে বঙ্গোপসাগরে বিধ্বস্ত হয়।

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন জানান, এ ঘটনার তদন্তে একটি দল গঠন করা হয়েছে। তদন্তের পর ঘটনার কারণ জানা যাবে।

কক্সবাজার সদর থানার ওসি মো. আসলাম হোসেন জানান, তিন জনের মৃতদেহ ময়না তদন্তের পর আইনগত প্রক্রিয়ায় হস্তান্তর করার প্রক্রিয়া চলছে।