মেইন ম্যেনু

যে কারণে ভেঙ্গেছে আপনার প্রেম !

Love at first sight! Loving the way you are! There is thousands reasons to love you! প্রেম প্রেম পাচ্ছে ভাব যাদের তাঁদের কাছে এই কথাগুলো ফুলঝুরির মত ফোটে, তবে সেটা প্রথম প্রথম। মনের মিলন শাশ্বত হয়। বিজ্ঞানের মতই প্রেমেও বিপরীত মেরুতে আকর্ষণ হয়।

প্রেম তো আসলে একটা অনুভব, আবেগ আর কিছু স্বতস্ফুর্ততা। কিছুর জন্য শরীরে শরীরে মিল হয়, মিল হয় কোমরে কোমরে, কাঁধে কাঁধ, মনে মন মিলতে আদপে কোনও নির্দিষ্ট কারণ প্রয়োজন হয় বলে প্রেমিকরা অন্তত মনে করেন না। তবে প্রেম গড়ার পর তা যেন ভেঙে না যায় তাঁর প্রতি সহানুভূতিশীল ও যত্নবান হন ‘আদর্শ প্রেমিক’। প্রেম যেমন হয়, তেমন ভাঙেও, এটা স্বাভাবিক নিয়ম। কীভাবে বুঝবেন প্রেম ‘পালাই’ ‘পালাই’ করছে-

কথপোকথনে ছন্দপতন
ঝগড়া নয়। মানুষ ঝগড়া তাঁদের সঙ্গেই করেন যারা তাঁদের জীবনে গুরুত্বপান এবং একটা অর্জিত অধিকার থেকে মতের অমিল থেকে ঝগড়া হয়। কথপোকথনে ছন্দপতন মানে আংশিক অর্থে এড়িয়ে যাওয়া। মতের অমিল হতেই পারে, কিন্তু তা গুরুত্ব হারালে, বুঝতে হবে ‘প্রেমে কুছ কালা হ্যায়’।

প্রতি ক্ষেত্রে ‘ছোট করা’
মানসিকভাবে আঘাত ও মানুষ হিসেবে ‘ছোট’ করা, প্রেম ভাঙার লক্ষণ। একজন আদর্শ প্রেমিক বা প্রেমিকা আপনার স্বপ্নে সঠিক ও ইতিবাচক মনোভাব পোষণ করবেন, যা আপনার জীবনের অগ্রগতির বাহক। খারাপ সময়েও পাশে দাঁড়াবে এবং তাঁর জন্য ‘ক্রেডিট’ চাইবে না।

একসঙ্গে থেকেও মনে হবে একা
দুজনে হাতে হাত, এই পথ যদি না শেষ হয়… ভাবনায় ভাবিত, অথচ তবুও মনে হচ্ছে একা একা, তাহলেই প্রেমের গাড়ির ব্রেক ডাউন। পথ সেখানেই শেষ বা শেষের শুরু।

গভীর অনুভবে ‘ছানি’
দূরত্ব, সান্নিধ্য তা কখনও শারীরিক হলে, পরিস্থিতিগত হলে সময় দিলে তা কেটে যায়। কিন্তু মানসিকভাবে দূরত্ব মেটানো কঠিন কাজ। আপনি আপনার প্রেমিক/প্রেমিকার জন্য গভীর অনুভব না পেলে এই কাজ কখনও সম্ভব নয়। সম্পর্কের রোম্যান্সের প্রতি স্পার্কে প্রেমে থাকুন, অনুভব বাড়বেই।

ছোট ছোট বিষয়েও মতের অমিল
সিনেমা দেখতে গিয়ে ব্যালকনিতে বসবেন না বক্সে বসবেন, বিষয়টা এই মতের অমিল নয়। অমিল অর্থে ছোট্ট ছোট্ট কথায় মত না মিলতে মিলতে সেটা একটা সময় বৃহত্‍ অমিল তৈরি করে দেয়।

চুপ থাকা
কথা না বলে ‘স্পিকটি নট’ থাকা যেমন কিছু ক্ষেত্রে সমস্যার আসান, ঠিক উল্টোটাও হয়। যেসময় কথা বলতে চাইছেন, কথা বলার দরকার অনুভব করছেন সেই সময় মুখে কুলুপ আঁটা মানে সম্পর্কেও কুলুপ।

শারীরিক নির্যাতন
যে প্রেমিক বা প্রেমিকা শারীরিক নির্যাতন করেন তিনি প্রেমে ১০০% হলে আপনাকে দুঃখ দিতে ১০০০% হতেও পিছুপা হবেন না। প্রেমে বন্ধুত্ব একটা আত্মিক যোগ ঘটায়, সেখানে গালমন্দ স্বাভাবিক, কিন্তু যে কথায় মনকে আঘাত করা যায়, এমন অভিজ্ঞতার সম্মুখীন বার বার হলে, এটা মেনে নেওয়াই ভাল মনের কষ্ট দিয়ে সম্পর্ক টেকে না, তাই প্রেম থাকুক বাই বাই প্রেমিক/প্রেমিকা।

আপনার পরিবার, বন্ধু যে সম্পর্ক মেনে নেয় না সেই সম্পর্ক শেষ পর্যন্ত জয় পেয়েছে, সেই সংখ্যাটা খুবই নগন্য। আপনি মানুষ ব্যতিক্রম হতে পারেন, কিন্তু এই ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম হওয়া সম্পর্কে আশঙ্কা তৈরি করে।