মেইন ম্যেনু

যে কারণে মেয়েরা বেশি পরকীয়ায় জড়ান!

ছেলেরা নাকি মেয়েরা, কারা বেশি পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েন? ছেলেরা যেমন মেয়েদের দিকেই আঙুল তুলবেন, মেয়েরাও কিন্তু চুপ করে থাকার পাত্রী নন। তাঁদের মতে ছেলেরাই বেশি পরকীয়ায় জড়ান। এ দ্বন্দ্ব চিরকালীন। আজ না হয় ছেলেদের দিকেই যাওয়া যাক। ধরেই নেওয়া যাক তাঁরাই ঠিক। বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কে মেয়েরাই বেশি জড়িয়ে পড়েন। কিন্তু কেন বলুন তো এরকম হয়?

জানা যাক তার আট কারণ।

তাড়াতাড়ি বিয়ে: মেয়েদের সাত তাড়াতাড়ি বিয়ে এর কারণ হতে পারে। যে মেয়েটার ২০ বছর বয়সেই বিয়ে দেওয়া হয়,

তিনি মধ্য তিরিশে গিয়ে ফেলে আসা দিনগুলোকে ফিরে পেতে চান।

বাড়ির চাপে বিয়ে: বাড়ি এবং সমাজের চাপে অনেকেই অনিচ্ছা সত্ত্বেও বিয়ে করতে বাধ্য হন। কিছু দিন পড়েই টনক নড়ে। বুঝতে পারেন কী ভুলটাই না তিনি করেছেন। তখনই শুরু হয় পরকীয়া সম্পর্কের।

মানিয়ে নিতে না পারা: অন্য পরিবেশে গিয়ে মেয়েদের মানিয়ে নিতে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে সমস্যা হয়। আবার উল্টোটাও ঠিক। পরিবারে এক নতুন লোকের উপস্থিতি অনেক পুরুষও মেনে নিতে পারেন না। আর এই মেনে নেওয়া না নেওয়ার টানাপড়েনে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েন অনেক মেয়েরা।

শারীরিক চাহিদা: পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ার অন্যতম কারণ এটিই। স্বামী যদি স্ত্রীকে যৌন তৃপ্তি দিতে না পারেন সে ক্ষেত্রেও মেয়েরা অন্য পুরুষের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে থাকেন।

আবেগের অভাব: সময়ের অভাব থেকে কমিউনিকেশন গ্যাপ তৈরি হয়। যার ফলে স্বামীর প্রতি আবেগ কমতে থাকে। এই সময়ে এক জন ভাল বন্ধু দরকার হয়ে পড়ে অনেক মেয়েদেরই।

আলাদা দৃষ্টিভঙ্গি: দুটো আলাদা মানুষ জীবনটাকে আলাদা ভাবে দেখবে— এটাই তো স্বাভাবিক। সেটা না জেনেই হুট করে বিয়েটা সেরে ফেলেন। দু’জনের দৃষ্টিভঙ্গির এই পার্থক্য সময়ের সঙ্গে দু’জনের কাছেই পরিষ্কার হতে শুরু করে। স্বামী সেটা মানিয়ে নিতে না পারায় মেয়েরা অন্য সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন।

গুরুত্ব না দেওয়া: মানিয়ে বেশি মেয়েদেরই নিতে হয়। তবে অনেক ক্ষেত্রেই তাঁদের উপরে নানা বিষয় চাপিয়ে দেওয়া হয়। তাঁর চিন্তা ভাবনাকে গুরুত্ব দেন না স্বামী। এই সময়ে এমন বন্ধুর প্রয়োজন হয়ে পড়ে যিনি তাঁকে গুরুত্ব দেবেন।

অর্থ: অর্থের জন্যও অনেক মেয়েরা বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন।-আবাং