মেইন ম্যেনু

যে কারনে আপনিও ‘বেস্ট ফ্রেন্ড’ এর প্রেমে পড়তে পারেন

বন্ধুত্ব সবার মাঝে গড়ে উঠে। কিন্তু বন্ধুত্বের সম্পর্ক যখন এত বেশী গভীরতায় পৌছায় তখন আর ফিরে আসা সম্ভব হয়ে উঠে না। আর এই গভীরতার মাঝে গড়ে উঠে বেস্ট ফ্রেন্ড। তাই বেস্ট ফ্রেন্ডও কখনও কখনও আপনার প্রেমে পড়ে যেতে পারে আপনার চমক লাগানো কিছু আচারণে। তাই বন্ধুত্বের হয় না পদবি, বন্ধু আমায় ছেড়ে যেও না। এই আকুতি সত্যি হওয়ার যথেষ্টই কারণ রয়েছে। আর সেই কারণগুলি জানলে আপনার চোখ কপালে উঠতে বাধ্য। এই সব কারণ সত্যি সত্যি আপনার জীবনে ঘটলে হয়তো ‘বেস্ট ফ্রেন্ড’-এর বাহুডোরেই মিলতে পারে প্রেম। ‘বেস্ট ফ্রেন্ড’-এর প্রেমে পড়ার ১২টি কারণ আছে। জেনে নিন কারণগুলি:
১. এমন এক সুন্দর মুহূর্ত, যার কথা শুধু আপনি আর আপনার বেস্ট ফ্রেন্ডই জানেন।

২. হয়তো ঠাঠ্ঠার ছলেই বন্ধুর ঠোঁঠে ঠোঁঠ ছুঁইয়ে দিয়েছিলেন কোনও একদিন। সেই স্মৃতি কিন্তু, একদিন আপনাদের দু’জনকেই কাঁপিয়ে দিতে পারে।

৩. দু’জনের বন্ধুত্ব এমনই যে একে অপরের ডেটিং-এ সঙ্গী হলেন। আর আপনাদের বন্ধুত্ব দেখে দু’জনের সঙ্গীরই ভিড়মি খাওয়ার জোগাড়।

৪. বয়ফ্রেন্ড বা গার্লফ্রেন্ড হিসাবে আপনারা একে অপরের কাছে কেমন তা হয়তো অলক্ষ্যে জরিপ করে বসে আছেন।

৫. আপনারা একে অপরের পরিবার এবং অন্য বন্ধুদের সঙ্গে মোলাকাত করেছেন ও তাঁদের সঙ্গে একটা ভাল সম্পর্ক তৈরি হয়েছে।

৬. আপনারা একে অপরের বহু গোপন কথা জানেন।

৭. কী ভাবে একে অপরের বিগড়ে যাওয়া মুড ঠিক করতে হয় তা জানেন।

৮. একে অপরকে ছাড়া সময় কাটানো অসম্ভব হয়ে পড়ে। একে অপরকে ছেড়ে অন্যদের সঙ্গে আড্ডাও মারতে চান না।

৯. নিজের নিজের ব্যক্তিগত মহলে দু’জনকেই সমানে এই প্রশ্নের মুখে পড়তে হয় যে আপনাদের মধ্যে কীভাবে বন্ধুত্ব হল।

১০. একে অপরের সমস্ত ‘ব্রেক আপ’-এর খবর জানেন।

১১. আপনারা দু’জনেই জানেন কী ভাবে একে অপরকে ‘চিয়ার আপ’ করতে হয়।

১২. আপনারা যখন একে অপরের কাছাকাছি থাকেন তখন নিজেদেরকে নিরাপদ বলে বোধ করেন।-এবেলা