মেইন ম্যেনু

যে ৫টি পানীয় নিমিষে বৃদ্ধি করবে এনার্জি

কাজ করতে করতে ক্লান্তি লাগবে এটি স্বাভাবিক। এই ক্লান্তিবোধ দূর করার জন্য আমরা কি পান করি? সাধারণত চা অথবা কফি নয়তো কোন এনার্জি ড্রিঙ্ক। আপাততদৃষ্টিতে এই পানীয়গুলো ক্লান্তি দূর করে থাকলেও আসলে আপনাকে আরও বেশি ক্লান্ত করে তোলে। কিছু খাবার এবং পানীয় আছে যা আপনার ক্লান্তিবোধ কাটিয়ে নতুন করে কাজে উদ্যমী করে তোলে।

১। লেবুর শরবত
৫ চা চামচ লেবুর রস, এক চিমটি লবণ, ২ চামচ মধু এবং ২ কাপ পানি ব্লেন্ডারে দিয়ে ব্লেন্ড করে নিন। এবার কিছু বরফকুচি দিয়ে পান করুন। দেখবেন মুহূর্তে ক্লান্তি বোধ অনেকখানি কমে গেছে।

২। আলুর পানি
১টি খোসা ছড়ানো আলু এবং ৮ আউন্স পানি। পানিতে আলু সারারাত ভিজিয়ে রাখুন। পরের দিন সকালে এটি পান করুন। সারাদিনের এ্যানার্জি পেয়ে যাবেন এই এক গ্লাস আলু পানি থেকে। এটি আপনার শরীরে পর্যাপ্ত পরিমাণে পটাশিয়াম দিয়ে থাকে। যা আপনাকে কাজে আগ্রহী করে তোলে।

৩। যষ্টিমধু
১ টেবিল চামচ যষ্টিমধু এবং ১ কাপ পানিতে ১০ মিনিট সিদ্ধ করে নিন। জ্বাল হয়ে আসলে লেবুর রস অথবা মধু মিশিয়ে নিন। এবার এটি সকালে পান করুন। যষ্টিমধু কাশির প্রতিষোধক হিসেবে পরিচিত। যষ্টি মধুর উপাদান দেহে করটিসলের সরবরাহ বৃদ্ধি করে এনার্জি দিয়ে থাকে।

৪। পালংশাক
আয়রন, ম্যাগনেশিয়াম, ভিটামিন বি, প্রোটিন এর অন্যতম উৎস। এতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি রয়েছে যা শরীরের আয়রন শোষণ করে থাকে। সকালে এক গ্লাস পালং শাক স্মুদি পান করতে পারেন। অথবা সালাদ, স্যুপ অথবা সবজিতে পালং শাক রাখুন।

৫। কলার স্মুদি
এনার্জি বৃদ্ধিতে কলা বেশ কার্যকর। আপনি যদি মনে করেন এর মিষ্টি আপনার সুগার লেভেল বাড়িয়ে দিবে, তবে ভুল ধারণা তা। এটি দ্রবণীয় আঁশযুক্ত ফল যার চিনি রক্তের সাথে সহজে মিশে যায়। এটি দ্রুত শরীরে এনার্জি দিয়ে থাকে। দুধ এবং কলা দিয়ে স্মুদি তৈরি করে খেতে পারেন। এছাড়া সকালের নাস্তায় একটি কলা খেতে পারেন। সারাদিনের কাজের এনার্জি পেয়ে থাকবেন কলা থেকে।