মেইন ম্যেনু

যে ৬টি কারণে প্রতিদিন চুল হারাচ্ছেন আপনি

চুল আঁচড়াতে গিয়ে আজকাল সকলেরই এক চিন্তা- চুল পড়ে মাথা খালি হয়ে যাচ্ছে! কী করি, কী করি? কত শত হেয়ার প্যাক আর পার্লারে ছোটাছুটি, কত চেষ্টা চুল পড়া রোধ করার জন্য। কিন্তু চুল পড়া প্রতিরোধ করা সম্ভব হচ্ছে না? চুল পড়ার কারণগুলো যদি জানতে পারেন, তবে এই সমস্যা সমাধান করা কিছুটা হলেও সহজ হবে। আসুন জেনে নিই চুল পড়ার মূল কারণগুলো।

১। বংশগতভাবে
চুল পড়ার অন্যতম কারণ হয় বংশগত বা জেনেটিক কারণ। আপনার পরিবারে চুল পড়ার প্রবণতা বেশি থাকলে আপনারও চুল বেশি পরিমাণে চুল পড়া শুরু হতে পারে। অবশ্য পুষ্টিকর খাবার, চুলের যত্ন এই সমস্যার সমাধান করে দিতে পারে।

২। রক্তস্বল্পতা
অনেক মহিলাদের মাসিকের সময় অতিরিক্ত রক্তপাতের কারণে ফলিক অ্যাসিড এবং রক্তস্বল্পতা দেখা দিয়ে থাকে। রক্তে হিমোগ্লোবিন পরিমাণ কম উৎপাদন হয়ে থাকে যার কারণে চুল থেকে শুরু করে শরীরের অন্যান্য অঙ্গে অক্সিজেন ঠিকমত পৌছায় না। যার কারণে মাসিকের সময় অনেকের বেশি পরিমাণে চুল পড়ে থাকে।

৩। স্ট্রেস
স্ট্রেস বা দুশ্চিন্তা স্বাস্থ্যের ক্ষতি করার সাথে সাথে আপনার চুলেরও ক্ষতি করছে। এটি সরাসরি চুল পড়ার সাথে জড়িত। আপনি লক্ষ্য রাখবেন, আপনি যখন চিন্তাগ্রস্থ থাকেন তখন আপনার চুল পড়া বৃদ্ধি পেয়ে থাকে। আবার চিন্তামুক্ত হয়ে গেলে চুল পড়া অনেকাংশ কমে যায়।

৪। হেয়ার স্টাইল
ঘন ঘন হেয়ার স্টাইল পরিবর্তন, চুল আয়রন করা, ব্লো ড্রাই, রং করা ইত্যাদি চুল পড়া বাড়িয়ে দিয়ে থাকে অনেকখানি। এটি চুল রুক্ষ, ভঙ্গুর করে তোলে।

৫। হরমোন পরিবর্তন
শরীরে নানা কারণে হরমোনের পরিবর্তন হতে পারে। গর্ভকালে এবং মেনোপেজের পর চুল পড়া বেড়ে যায়। থাইরয়েডের সমস্যা হলেও অনেক সময় চুল পড়া বেড়ে যায়।

৬। প্রোটিনের অভাব
আমাদের চুল কেরোটিন নামক প্রোটিন দিয়ে তৈরি। শরীরে প্রোটিনের অভাব দেখা দিলে চুলের উপর প্রভাব পড়ে। চুলের গোড়া দুর্বল হয়ে পড়ে। আগা ফেটে যায়। চুল ভঙ্গুর হয়ে যায়। ফাস্ট ফুড, জাঙ্ক ফুড খাওয়ার পরিবর্তে প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া উচিত।

এছাড়া নিয়মিত চুলের যত্ন চুলের গোড়া মজবুত করে চুল পড়া রোধ করে থাকে।