মেইন ম্যেনু

যে ৬ দৃশ্য কাঁদিয়েছে ক্রিকেট বিশ্বকে

সাম্প্রতিককালে আমাদের আবেগ নিয়ে যে খেলাটা সবচেয়ে বেশী খেলেছে তা হলো ক্রিকেট। ক্রিকেটের সাথে আমরা এতোটাই জড়িয়ে গেছে যে একটা ম্যাচের প্রতিটা বল, প্রতিটা মুহুর্ত আমাদের জীবনের একটা অংশ হয়ে গেছে। শুধু ম্যাচেই নয়, প্রত্যেকটা ক্রিকেট তারকাদের সাথে জড়িয়ে আছে আমাদের জীবনের সুখ-দুঃখ-হাসি-আনন্দ বেদনা সহ জীবনের প্রায় প্রতিটা ভাগই। শিশু থেকে যুবা, যুবা থেকে বৃদ্ধ সবার আবগের অনেক বড় অংশ জুড়ে এখন ক্রিকেট। এখন শুধু নিজের দেশের খেলা হলেই না, অন্য কোনো দেশের খেলা হলেও আমরা খুব মনোযোগে খেলা দেখি। ক্রিকেটের কিছু কিছু দৃশ্য মানুষের মনে সারা জীবন থেকে যাবে।তার মাঝে এমন কিছু দৃশ্য আছে যা কাঁদিয়েছে পুরো ক্রিকেট বিশ্ব।

এক নজরে দেখে নিন কোন দৃশ্য কাঁদিয়েছে ক্রিকেট বিশ্বকে :

4.-Phil-Hughes-Dad-Aaron-Finch

অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার ফিলিপ হিউজের মৃত্যু কাঁদিয়েছে পুরো ক্রিকেট দুনিয়াকে। বাউন্সারে আঘাত পেয়ে হাসপাতালে ভর্তি, অতঃপর শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ।

6.-Shakib-al-Hasan

এশিয়া কাপের ফাইনালে পাকিস্তানের কাছে মাত্র দুই রানে হেরে ছিলো বাংলাদেশ।মিরপুরের ছবিটা সেদিন কান্নার। মুশফিকের কান্না, এনামুলের কান্না, সাকিবের কান্না। নাসিরের কান্না। সঙ্গে কেঁদেছিল পুরো বাংলাদেশ। গোটা জাতির বিষাদমাখার এমন উপলক্ষ্যও আসে না এমন! ৩ উইকেট হাতে নিয়ে ৬ বলে ৯ রান করতে না পারার আক্ষেপ তাড়া করবে অনেকদিন।

1.Sachin-Tendulkar-570x420

ক্রিকেট ঈশ্বর শচিন টেন্ডুলকারের অবসরের মূহুর্তের কাঁদিয়েছিল ক্রিকেট বিশ্বকে।মাত্র ৫ ফুট ৫ ইঞ্চির চিরচেনা অবয়বের ব্যাটসম্যান শচিন যখন মাঠ ছাড়ছিলেন; তখন একবার থমকে গ্যালারির দিকে তাকালেন; পরক্ষণেই ব্যাট তুলে শেষ শ্রদ্ধা নিবেদন করলেন। গ্যালারিতে নেমে এসেছিল পিন-পতন নিরবতা। দাঁড়িয়ে শচিনভক্তরাও শ্রদ্ধা জানালেন;-‘আমরা কোনোদিন ভুলবনা’।

2.-Ab-de-Villiers

২০১৫ বিশ্বকাপে সেই ‘চোকার্স’ তকমার সার্থকতা ফিরিয়ে আনল দক্ষিণ আফ্রিকা। ৪৩ ওভারে ২৯৮ রানের টার্গেট দিয়েও অকল্যান্ডের ইডেন পার্কে বিশ্বকাপের সেমি ফাইনালে হারল এবি ডিভিলিয়ার্সের দল।সেই দিন তাদের সাথে কেঁদেছিল ক্রিকেট ভক্তরা।

3.-Kumar-Sangakkara

তার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের দীর্ঘ ১৫ বছরের। কিন্তু শেষ বিদায়ে কেঁদে কাঁদিয়ে গেলেন সাঙ্গাকারা।
বিদায়ী টেস্ট শেষে বক্তব্য দেওয়ার সময় পরিবারের কথা বলতে গিয়ে চোখের জল ধরে রাখতে পারেননি সবার প্রিয় ‘সাঙ্গা’। ধরা গলায় ধন্যবাদ-কৃতজ্ঞতা-ভালোবাসা জানিয়েছেন সবার প্রতি। নিজে কেঁদেছেন, কাঁদিয়েছেন বাবাসহ অনেককে।

9.-Yuvraj-Harbhajan

দীর্ঘ ২৮ বছর পর ২০১১ বিশ্বকাপ জেতার পর এমন কান্না কেঁদেছিল ভারতের খেলোয়াড়রা তার সাথে ভক্তরাও।



« (পূর্বের সংবাদ)