মেইন ম্যেনু

যে ৮টি কারণে নিয়মিত খাবেন আনারস

রসালো, সুস্বাদু মজাদার ফল “আনারস”। একটা সময় ছিল যখন শুধু বর্ষাকালে এই ফলটির দেখা পাওয়া যেত, বর্তমান সময়ে বাজারে সারা বছর এই ফলটি কিনতে পাওয়া যায়। ফলের দোকান ছাড়াও রাস্তার পাশে ভ্যানগাড়িতেও এই ফলটি কিনতে পাওয়া যায়। অনেকেই আনারস খেতে পছন্দ করেন না। কিন্তু আনারসে আছে ক্যালসিয়াম,পটাসিয়াম, ভিটামিন সি, ফাইবার, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ভিটামিন বি১, ভিটামিন বি৬, কপার। পেটের সমস্যা দূর করা থেকে শুরু করে ব্রণ দূর করা পর্যন্ত অনেক ক্ষেত্রে আনারস বেশ উপকারী।

১। ওজন হ্রাস করতে

যে সকল ফল ওজন হ্রাস করতে সাহায্য করে তার মধ্যে আনারস অন্যতম। এটি প্রাকৃতিক ক্ষুধা নিবারক হিসেবে কাজ করে। আনারস এক সপ্তাহের মধ্যে ৩ কিলো পর্যন্ত ওজন হ্রাস করতে সাহায্য করে।

২। হজমশক্তি বৃদ্ধি করে

অনেকেই আছেন যারা বদ হজমের সমস্যায় ভুগে থাকেন। খাবারের মাঝে এক থেকে তিন টুকরো তাজা আনারস খান। এটি পেটের সমস্যা দূর করে। হজমশক্তি বৃদ্ধি করে দেয়। লক্ষ্য রাখবেন আনারস যেন সম্পূর্ণ পাকা হয়।

৩। প্রাকৃতিক ডিটক্স

আনারস প্রাকৃতিক ডিটক্স হিসেবে কাজ করে। শরীর থেকে টক্সিন পর্দাথ দূর করে সুস্থ থাকতে সাহায্য করে।

৪। হাড় এবং দাঁত মজবুত করতে

আনারসে আছে খনিজ লবণ ম্যাঙ্গানিজ, যা দাঁত, হাড়, চুলকে মজবুত করে। গবেষণা দেখা গেছে, যারা নিয়মিত আনারস খান এমন ব্যক্তিদের ঠাণ্ডা লাগা, গলা ব্যথা, সাইনোসাইটিসজাতীয় অসুখগুলো কম হয়।

৫। কৃমি দূর করতে

আনারস কৃমিনাশক। কৃমি দূর করার জন্য সকালে খালি পেটে আনারস খাওয়ার পরামর্শ অনেকে দিয়ে থাকেন।

৬। ক্যান্সার প্রতিরোধে

অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট দেহের ফ্রি র‍্যাডিক্যালের বিরুদ্ধে লড়াই করে থাকে। যা কোষ ক্ষতিগ্রস্ত রোধ করে এর সাথে অনেকগুলো ক্যান্সার প্রতিরোধ করে থাকে।

৭। ত্বকের যত্নে

সুন্দর, আর্কষণীয় ত্বক পেতে আনারস অনেক উপকারী। তিন টেবিল চামচ আনারস কুচি, একটি ডিমের কুসুম এবং অল্প পরিমাণ দুধ মিশিয়ে প্যাক তৈরি করুন। এটি ত্বকে ব্যবহার করুন। কয়েক মিনিট পর পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এটি ত্বক ময়েশ্চারাইজ করে থাকে। এছাড়া নিয়মিত আনারস খাওয়া ত্বক সুস্থ, হাইড্রেইড রাখে।

৮। রক্ত কণিকা সুস্থ রাখতে

আনারস রক্ত কণিকা উন্নত করে এবং রক্ত চলাচল সচল রাখতে সাহায্য করে। এটি রক্তে অক্সিজেনের গ্রহণে সাহায্য করে।